আলীকদমে কথায় কথায় যান চলাচল বন্ধ : ভোগান্তি চরমে

যানবাহন শূন্য আলীকদম
বাস স্টেশন
বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় বাস মালিক ও শ্রমিক সমিতির ডাকে আজ শত্রুবার সকাল থেকে কর্ম বিরতি চলছে। সকালে আলীকদম বাস কাউন্টার থেকে দুয়েকটি বাস ও জীপ চকরিয়ার উদ্দেশ্য আলীকদম ছেড়ে গেলেও চকরিয়া থেকে আলীকদমের উদ্দেশ্য কোন বাস বা জীপ যাত্রী নিয়ে আসেনি। আলীকদম, লামা, চকরিয়া ও চট্টগ্রাম গামী বিআরটিসি স্পেশাল সার্ভিস চালু হওয়ার প্রতিবাদে আলীকদম, লামা ও চকরিয়া সড়ক পরিবহন বাস,জীপ মালিক সমিতি ও সড়ক পরিবহন শ্রমিক সমিতির ডাকে কর্মবিরতি চলছে।
স্থানীয় মোঃহাসান ও ইকবাল সোবহান বলেন, আলীকদম, লামা চকরিয়া সড়কে একচেটিয়া ভাবে বাস,জীপ মালিক সমিতি ও সড়ক পরিবহন শ্রমিক সমিতির কাছে বাস ও জীপ চালু হওয়ার পর থেকে জিম্মি হয়ে আছে আলীকদমের যাত্রীরা,যতবারই উপজেলায় অন্যকোন গাড়ী প্রবেশ করতে চেয়েছে, ততবারই তারা অবরোধ করে আলীকদমবাসীকে জিম্মি করে ফেলেছে।
তিনি আরো বলেন, ইচ্ছেমত ভাড়া বৃদ্ধি, ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজাহার সময় বাস মালিক সমিতি দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করে এবং বাস ও জীপগুলো স্টেশন ব্যতিত যেকোন জায়গা থেকে অতিরিক্ত যাত্রী নেয়। তারা এতো প্রভাবশালী যে সরকারী গাড়ীগুলো প্রবেশ করতে বাধা দিচ্ছে।
আরো জানা গেছে, আলীকদম সড়কে চলাচল করা গনপরিবহণগুলো দীর্ঘদিন ধরে যাত্রী সেবার মান না বাড়িয়ে বরং পরিবহন ও যাত্রী সেবা উন্নত করার প্রতিশ্রুতিতে অন্যকোন গাড়ী প্রবেশ করলেই তাদের বাধা দিতে বার বার কর্মবিরতি করছে। বাস মালিক ও শ্রমিক সমিতি যাত্রী সেবার প্রতিযোগিতায় নামতে প্রস্তুত নয় কিন্তু অন্য গাড়ী এসে যদি যাত্রী সেবা উন্নত করতে চাইলেই,তখনই মালিক সমিতির নানা তালবাহানা শুরু হয়।
বাস চালক মোঃবেলাল ও গিয়াস উদ্দিন বলেন, আমরা ১৯৮৬ সাল থেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আলীকদমের যাত্রীদের সেবা করে আসছি এই সড়কে আমাদের চালক ও শ্রমিক ভাইয়ের রক্ত মিশে আছে। এতোদিন কষ্ট করে আমরা সেবা দিয়ে আসলাম, বর্তমান সুসময়ে আমাদের পেটে লাথি মারার পরিকল্পনা এটি।
আলীকদম, লামা,চকরিয়া সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ জামশেদ উদ্দিন ও সড়ক পরিবহন শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃরফিক উদ্দিন বলেন,যাত্রীদের সেবার জন্য ঢাকাগামী শ্যামলী ও হানিফ চালু করেছি এবং মালিক সমিতি চট্টগ্রামগামী বাস সার্ভিস চালুর পরিকল্পনা করছে এরই মধ্যে আমাদের অবগত না করে বিআরটিসি বাস সার্ভিস চালু করবে এটি দুঃখজনক। আমাদের সাথে সমম্বয় করলে কোন সমস্যা ছিল না।
তিনি আরো বলেন, আলীকদম, লামা ও চকরিয়া বাস,জীপ ও শ্রমিক তিনটি সংগঠন বিকেলে বসব তার আমাদের পরবর্তী কার্যক্রম ঘোষণা করা হবে জানান এই বাস ও শ্রমিক নেতারা।
এবিষয়ে আলীকদম উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাজিমুল হায়দার বলেন, শ্রমিক ও মালিক সমিতিগুলো কার্যালয় আলীকদম বা লামায় যেহেতু নেই, তাই বিলম্ব হচ্ছে। তাই লামা ও চকরিয়া উপজেলার নির্বাহী অফিসারসহ চকরিয়ায় শ্রমিক ও বাস মালিক সমিতির নেতাদের আলোচনা চলছে এবং দ্রুত সড়ক চলাচল স্বাভাবিক হবে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।