আশানুরুপ পর্যটক নেই বান্দরবানে

মহামারি করোনার কারণে সাড়ে চার মাস বন্ধ থাকার পর ১৯ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) থেকে খুলেছে বান্দরবানের সকল পর্যটন কেন্দ্র। পর্যটনকেন্দ্রের পাশাপাশি পর্যটকদের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে হোটেল, মোটেল ও বিভিন্ন গেস্ট হাউস।

পর্যটনকেন্দ্র খোলার সংবাদে সারাদেশের মতো বান্দরবানে আসতে শুরু করেছে পর্যটকেরা, তবে ব্যবসায়ীরা যে সংখ্যক পর্যটক আসার আশা করেছিল সেরুপ পর্যটকদের উপস্থিতি নেই বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্র ও হোটেল মোটেলে।

এদিকে দীর্ঘদিন ঘর বন্ধি থাকার পর পর্যটন কেন্দ্রে ভ্রমনের পাশাপাশি পাহাড়ের নৌসর্গিক সৌন্দর্য্য দেখে আনন্দে বিমোহিত পর্যটকেরা।

ঢাকা থেকে বান্দরবানের নীলাচল পর্যটনকেন্দ্রে বেড়াতে আসা পর্যটক জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন,করোনা আর লকডাউনে ঘরে থাকতে থাকতে জীবনের গতি যেন কমে এসেছিল আর সকল পর্যটন কেন্দ্র খোলার সংবাদ পেয়ে লোভ সামলাতে না পেরে বান্দরবান ছুটে আসলাম এবং নীলাচল, মেঘলা, শৈলপ্রপাতসহ বেশ কয়েকটি পর্যটনকেন্দ্র ভ্রমন করে বেশ মজা পাচ্ছি।

রাজশাহী থেকে বান্দরবানের পর্যটনকেন্দ্র মেঘলা এলাকায় ভ্রমনে আসা মো.জামশেদ বলেন,পর্যটনকেন্দ্র খোলার পরপরই বন্ধু ও আত্মীয়দের নিয়ে বান্দরবান চলে আসলাম, ভ্রমন করে বেশ ভালো লাগছে, প্রকৃতি আর সবুজের অপরুপ সৌন্দর্যে আমরা বিমোহিত।

এদিকে বান্দরবানের আবাসিক হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি অমল কান্তি দাশ বলেন, দীর্ঘদিন পরে পর্যটনকেন্দ্র খোলা হয়েছে এটি আমাদের জন্য অত্যন্ত সুসংবাদ। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় আমাদের প্রচুর ক্ষতি হয়েছে।

সভাপতি অমল কান্তি দাশ আরো বলেন, ১৯ আগস্ট থেকে পর্যটনকেন্দ্র ও হোটেল মোটেল খোলা হলেও পর্যটন ব্যবসায়ীরা যেভাবে বান্দরবানে প্রচুর পর্যটক আসার কথা চিন্তা করেছে সেই পরিমান পর্যটক এখনো বান্দরবানে প্রবেশ করেনি।

এদিকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে কাজ করছে ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা। ভ্রমনে আসা পর্যটকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে ভ্রমনের অনুরোধ জানিয়েছে পর্যটন সংশ্লিষ্টরা।

ট্যুরিস্ট পুলিশ বান্দরবান জোন এর ইনচার্জ মো.আমিনুল হক বলেন, বান্দরবানের পর্যটনকেন্দ্র ও হোটেল মোটেলে যারা অবস্থান করবে তাদের অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। নো মাস্ক নো সার্ভিস এই বিষয়টিকে আমাদের সবাইকে মনে রাখতে হবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।