ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে অবৈধ বালু উত্তোলন ও চাউল নয়ছয়ের অভিযোগ

%e0%a6%85%e0%a6%ad%e0%a6%bf%e0%a6%af%e0%a7%8b%e0%a6%97বান্দরবান সদর উপজেলার টংকাবতী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোবারক হোসেনের বিরুদ্ধে বড়ঝিরি থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন এবং ১০টাকার চাউল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ এনে জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদান করে স্থানীয়রা।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১১ নভেম্বর ৩নং ওয়ার্ডের স্থানীয় বাসিন্দা রমজান আলী, সোলাইমান, আবুল কাসেম, নুরুল আলম এলাকাবাসী পক্ষে জেলা প্রশাসককে এই স্মারকলিপি প্রদান করেন।
স্মারকলিপি সূত্রে জানা গেছে,শুধু অবৈধভাবে বালু উত্তোলন নয়, ইউপি সদস্য মোবারক হোসেন সরকার কর্তৃক গরীবদের মাঝে ১০টাকার চাউল বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম এবং আত্মসাতে লিপ্ত রয়েছে। টংকাবতী ৩নং ওয়ার্ডে ১০টাকা চাউল পাওয়া ৫৫জনের কার্ড রয়েছে। এরমধ্যে উক্ত ইউপি সদস্য উৎকোচের মাধ্যমে ৯ জন বিত্তবানকে কার্ড প্রদান করেন।
এরা হলেন, সাবেক মহিলা মেম্বার মনু আরা আক্তার, স্বামী-ওসমান গনি, সাবেক মহিলা মেম্বার নাছিমা আক্তার স্বামী-মোঃ ইউছুপ, সাবেক ইউপি সদস্য আলম সাইর, পিতা-আলতাফ মিয়া, নুরুল ইসলাম, পিতা-মৃত গোরা মিয়া, আবুদ হাইর, পিতা-মৃত হাজী আব্দুর রহমান, হাকিম মিয়া, পিতা-আলী আগম্মদ, সরই আহাম্মদ, পিতা-বদিউর রহমান। এছাড়াও কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বাসিন্দা রুজিনা আক্তার, পিতা-ইলিয়াছ ও চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার পদুয়ার বাসিন্দা আব্দু আলম পিতা-আলী আহম্মদকেও কার্ড দেওয়া হয়েছে।
অভিযোগকারীরা আরো জানান, ১৬১নং কার্ডধারী ছিদ্দিক আহম্মদ, পিতা-মৃত আতর আলী দুইটি কার্ডে চাউল উত্তোলন করছেন। এছাড়াও ডিলার জুয়েল ত্রিপুরার টংকাবতী ইউপি কার্যালয় থেকে চাউল নেওয়ার নিয়ম থাকলেও ৪৮নং লট এলাকার সুলতান আহাম্মদের বাড়ী থেকে চাউলগুলো বিতরণের নামে আত্মাসাত করছে মোবারক হোসেন। এছাড়াও ৫৫জন কার্ড প্রাপ্ত ব্যক্তি থেকে কার্ড প্রদানকালে ৪’শ টাকা করে উৎকোচ নিয়েছেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ইউপি সদস্য মোবারক হোসেন টংকাবতী ইউনিয়নের চরম্বা খালের বড়ঝিরি এলাকা থেকে জেলা প্রশাসনের কোন প্রকার অনুমতি ছাড়া বালু উত্তোলন করছেন। এছাড়াও উক্ত ইউপি সদস্য ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতির মাধ্যমে বড়ঝিরির খাইর আহম্মদের খামারের পাশে যাত্রী ছাউনী নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।