এবার বদলে যাচ্ছে পূরবী-পূর্বাণী

৪টি এসি বাস চালু করার সিদ্ধান্ত

বান্দরবান-চট্টগ্রাম সড়কের পরিবহণ খাতকে এগিয়ে নিয়ে যুগযুগ ধরে ধরে যাত্রী সেবা দিয়ে আসলেও গত ৮ বছর ধরে বিভিন্ন কারনে পূরবী-পূর্বাণী পরিবহণ যথাযথ যাত্রী সেবা দিতে না পারা এবং এসিবাস না নামানোর কারনে ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে জেলার স্থানীয়রা। কিন্তু এবার যাত্রী সেবার মান উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে পূরবী-পূর্বাণী পরিবহন। এবার তারা সড়কে নতুন ৪টি এসি বাস নামাচ্ছে। আর এই কারনে জেলায় বাড়বে পর্যটক আগমন। আর এ নিয়ে এস বাসু দাশ এর বিশেষ প্রতিবেদন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে,গত বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) বান্দরবান পৌরসভা মিলনায়তনে বিআরটিসি ও পূরবী-পূর্বাণী মালিক সমিতির যৌথ বৈঠকে বান্দরবান-চট্টগ্রাম সড়কে উভয় দিক থেকে ৬টি করে বিআরটিসি বাস চলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিআরটিসি’র বাস চলাচলে নতুন সময় সূচী আগামী সোমবার নির্ধারন করা হবে। এসময় অনেকে পূরবী-পূর্বাণী পরিবহণকে আধুনিকায়নের জন্য ঢেলে সাজানোর পাশাপাশি যাত্রী সেবায় আরো তৎপর হওয়ার আহবান জানানো হয়।

এই ব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি তৌহিদুর রহমান রাশেদ বলেন, বান্দরবানে যাত্রী সেবার মান উন্নয়নে পূরবী-পূর্বাণীকে আরো সচেতন হতে হবে, এটা সময়ের দাবী। এটা করতে পারলে জেলায় পর্যটকের আগমন বাড়বে এবং আমাদের পরিবহণ খাত আরো এগিয়ে যাবে।

পূরবী-পূর্বাণী মালিক সমিতির সূত্র পাহাড়বার্তা’কে জানায়,পর্যটন নগরী হিসাবে পূরবী-পূর্বাণী পরিবহণে যাত্রী সেবার জন্য মালিকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি তৎপর ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ি কাজল কান্তি দাশ। গত চারমাস আগে জেলার এই বিশিষ্ট ব্যবসায়ি প্রতি সপ্তাহে অন্তত কয়েকবার শহরের বাসস্টেশনে উপস্থিত থেকে যাত্রী সেবার জন্য এই পরিবহণের ড্রাইভার ও হেলপারদের দিক নির্দেশনা প্রদানের পাশাপাশি যাত্রীদের অভিযোগ শুনে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করতেন। তবে অন্য মালিকদের নিস্ক্রিয়তার কারনে পূরবী-পূর্বাণী পরিবহণ নিয়ে এতো অভিযোগ উঠে।

শৈলশোভা মালিক সমিতির সভাপতি আবদুল কুদ্দুস পাহাড়বার্তাকে বলেন,পূরবী-পূর্বাণী যে বদলে যাচ্ছে এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে আজ (শনিবার)। এখন থেকে যাত্রীদের সেবা দিতে সব ধরণের চেষ্টা থাকবে।

যাত্রী সেবার নতুন উদ্দ্যেগের অংশ হিসাবে “ক্লোজডোর” করার জন্য স্টিকার তৈরী করছে পূরবী পরিবহণ

আরো জানা গেছে, জেলার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবীর মুখে সময়ের সাথে সঙ্গতি রেখে পূরবী-পূর্বাণী পরিবহণ মালিকরা এবার সেবার মান উন্নয়নে বদ্ধ পরিকর। তাই আজ শনিবার (২নভেম্বর) শহরের পূর্বাণী কাউন্টারে পরিবহণটির মালিকরা বৈঠক করে। বৈঠকে বান্দরবান-চট্টগ্রাম সড়কে “ক্লোজ ডোর” সার্ভিসগুলো সচল করার পাশাপাশি আগামী ১০ নভেম্বরের মধ্যে ৪টি এসি বাস চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এদিকে যাত্রী সেবার পরিধি বাড়াতে নতুন উদ্দ্যেগের বিষয়ে পূরবী-পূর্বাণী মালিক সমিতির এক নেতা পাহাড়বার্তা’কে বলেন, আজ মালিক সমিতির বৈঠক থেকে আমরা যাত্রী সেবায় নতুন অনেক উদ্দ্যেগ গ্রহন করেছি, কাল রোববার এই বিষয়ে চূড়ন্ত সিদ্ধান্ত আসছে।

অন্যদিকে পুরনো গাড়িগুলোকে দ্রুত সংস্কার এবং কিছু পুরানো গাড়িকে বান্দরবান-চট্টগ্রাম সড়ক থেকে প্রত্যাহার করে উপজেলার সড়কে চলাচলের জন্য উদ্দ্যেগ গ্রহন করা হচ্ছে। আর এই ধরা অব্যাহত থাকলে নতুন রুপে দেখা যাবে জেলার দীর্ঘদিনের পূরবী-পূর্বাণী পরিবহণকে।

বান্দরবান বিআরটিসির প্রতিনিধি সাদেক হোসেন চৌধুরী পাহাড়বার্তাকে বলেন, পূরবী-পূর্বাণী পরিবহণ উন্নত সেবার উদ্যোগ নিবে, পরিবর্তনের এই শুভ সূচনায় ৩য় কোন পক্ষ যাতে ফায়দা লুটতে না পারে সেই ব্যাপারে যাত্রী ও আমাদেরও সতর্ক থাকতে হবে।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরে বান্দরবান-চট্টগ্রাম, বান্দরবান-কক্সবাজার সড়কে চলাচলকারী বাসগুলোতে উন্নত সেবা প্রদান, নতুন এসি বাস সার্ভিস চালুর কারনে জেলায় পর্যটকের সংখ্যা আরো বাড়বে, এমন মত পর্যটক সংশ্লিষ্টদের।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।