কুড়িগ্রামের ডিসিসহ জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করলেন রাঙামাটির সাংবাদিকরা

নিখোঁজ সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলকে উদ্ধার, ঢাকা ট্রিবিউন ও বাংলা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুল ইসলাম রিগ্যানকে নির্যাতনকারী কুড়িগ্রামের ডিসিসহ সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে রাঙ্গামাটিতে কর্মরত সকল সাংবাদিকরা।

এছাড়াও সারাদেশে অব্যাহত সাংবাদিক খুন, গুম, অপহরণ, হামলা ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদ জানানো হয় মানববন্ধন থেকে।

আজ সোমবার (১৬মার্চ) বেলা সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনের সড়কে অনুষ্ঠিত এ কর্মসূচিতে অংশ নেন সাংবাদিকরা।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন, দৈনিক গিরিদর্পন সম্পাদক একে এম মকছুদ আহমেদ, প্রবীন সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে, রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার আল হক, রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা, সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হিমেল চাকমা, সাংবাদিক ফোরামের সহ সাধারণ সম্পাদক মনছুর আহমেদ, জার্নালিস্ট নেটওয়ার্কের সভাপতি শান্তিময় চাকমা, সাংবাদিক সমিতির সভাপতি জিয়াউল হক প্রমুখ।

বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিনের নির্দেশে আরিফুলের বাসায় গিয়ে দরজা ভেঙে তার স্ত্রী-সস্তানের সামনে তাকে মারধর করে নিয়ে যায়। এরপর আধা বোতল মদ ও দেড়শ গ্রাম গাঁজা রাখার অভিযোগে তাকে এক বছরের কারাদন্ড দেয়া হয়।’ একজন সাংবাদিককে তুলে নিয়ে গিয়ে শারীরিক নির্যাতনে দুঃখ প্রকাশ করে তারা বলেন, ‘এটি সারাদেশের সাংবাদিকদের জন্য একটি অশনিসংকেত।’ আমলারা হচ্ছেন দেশের সেবক, তাদের আচরণ দেখে মনে হয় তারা শাষক, যা কখনো কাম্য নয়। বক্তারা আমলাতান্ত্রিক এ শাষন ব্যবস্থায় অতীতে আমলারা অপরাধ করেও পার পেয়েছেন বিধায় বারবার একই ঘটনা ঘটছে বলেও মন্তব্য করেন।

মানববন্ধনে আরিফুল ইসলাম রিগ্যানের নিঃশর্ত মুক্তি এবং সরকারি ক্ষমতা অপব্যবহার করায় কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীনের অপসারণ ও জড়িত অন্যান্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তারা।

এছাড়া ফটোসাংবাদিক ও পক্ষকাল ম্যাগাজিনের সম্পাদক শফিকুল ইসলাম কাজল নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তাকে খুঁজে বের করার জোর দাবি জানানো হয়।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।