কেএনএফ’কে নিষিদ্ধ ঘোষনা করতে হবে : ক্যশৈহ্লা

কেএনএফ’কে নিষিদ্ধ ঘোষনা করতে হবে, কেএনএফ (কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট) যারা আছে তাদেরকে অবশ্যই অস্ত্র সমর্পণ করতে হবে, এলাকার সব সম্প্রদায়ের শান্তির জন্য তাদের সব অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের অস্ত্র সমর্পণ করা উচিত, তাহলে এই এলাকায় শান্তি বিরাজ করবে। অদূর ভবিষ্যতে এই ধরণের শসস্ত্র কর্মকাণ্ড কিন্তু বিপদজনক হবে, এই জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সরকারকে আবেদন জানাচ্ছি, অচিরেই তাদের দমন করার অপারেশন চালানোর জন্য।

আজ শনিবার বিকালে বান্দরবানের রেইছার থলিপাড়া বৌদ্ধ বিহারের ৮৭ তম দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দানোৎসব অনুষ্ঠানে এই কথা বলেন, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা।

এসময় পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা আরো বলেন, পাহাড়ের জঙ্গি গোষ্ঠী অবস্থান করছে তা পার্বত্যবাসীর জন্য লজ্জাকর ও দুঃখজনক। বান্দরবান যদি সন্ত্রাসীদের অভয়ারণ্য হয়ে যায়, তাহলে ভবিষ্যতে কি হবে। তাই অবশ্যই সন্ত্রাসীদেরকে দমন করতে হবে।

সংযম ও সমাধির পবিত্র ত্রৈমাসিক বর্ষা বাসান্তে মহতী প্রবারণার পূর্ণিমার পর দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দানোৎসব উদযাপিত হয়।

বান্দরবানের রেইছার থলিপাড়া বৌদ্ধ বিহারের ৮৭ তম দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দানোৎসব। ছবি-পাহাড়বার্তা

কঠিন চীবরদান উপলক্ষে দিনব্যাপী প্রথমে সকালে বিশ্বশান্তি মঙ্গল কামনায় সূত্রপাঠ, জাতীয় ও ধর্মীয় পতাকা উত্তোলন, পূজনীয় ভিক্ষুসংঘের প্রাতঃরাশ, বুদ্ধপূজা, অষ্ট পরিষ্কার দান, মহাসংঘদান ও কঠিন চীবরদান ও ধর্মদেশনা প্রদান করা হয়।

এসময় ধর্মীয় দেশনা প্রদান করেন, বাঙ্গাল হালিয়া হেডম্যান পাড়া বৌদ্ধ বিহারের বিহারাধক্ষ্য উ নন্দ বংস। অনুষ্ঠানে কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠানের সভাপতি ক্যহ্লামং (কারবারি) ও সাধারণ সম্পাদক মংক্যউ, ভান্তে, দায়ক দায়িকাসহ শত শত নারী পুরুষ অংশগ্রহণ করেন।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।