কোয়ান্টামের অবহেলার কারনে সন্তান হারিয়েছি : নিহত শ্রেয়র জ্যাঠা

শিশুর দায়িত্ব নিয়ে তারা দায়িত্বে অবহেলা করেছে, তাই আমাদের সন্তানকে হারিয়েছি। কিভাবে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় ছেলেটি স্কুল থেকে বের হলো এভাবে মারা গেল,আমরা এর জবাব চাই। অবহেলাকারীদের কঠোর বিচার চাই। ঠাকুরগাঁও থেকে পাহাড়বার্তাকে ফোনে এসব কথা বলেন, বান্দরবানের লামা উপজেলার কোয়ান্টাম এর নিহত শিক্ষার্থী শ্রেয় মোস্তাফিজ এর আপন জ্যাঠা জাকির মোস্তাফিজ মিলু।

তিনি আরো বলেন, শ্রেয়র বাবা বুলবুল মোস্তাফিজ, মা শাহনাজ পারভীন। বাড়ি ঠাকুরগাঁও শহরের হাজীপাড়ায়। শ্রেয় ওর পরিবারের একমাত্র সুস্থ্য সন্তান ওর একমাত্র বড় ভাই সুদিন মোস্তাফিজ শাররীক ও মানসিক প্রতিবন্ধী। কোয়ান্টাম এর বিরুদ্ধে শোকরুদ্ধ বাবা মা অভিযোগ করে বলেন, লাশ যেনো অক্ষত থাকে এটা আমাদের পারিবারিক দাবি, আমরা সন্তানকে শেষ দেখা দেখতে চাই এবং অবহেলাকারীদের বিচারের আওতায় আনা হোক,যাতে কোন বাবা-মা সন্তান হারা না হয়।

শ্রেয়র জ্যাঠু ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের -সহ সভাপতি ও ঢাকা ট্রিবিউন এর জেলা প্রতিনিধি জাকির মোস্তাফিজ মিলু আরো বলেন, বান্দরবান জেলা ঠাকুরগাঁও থেকে অনেক দূরে, লাশ বুঝে নিতে গেলে যাওয়া আসায় অনেক সময় পেড়িয়ে যাবে, তাই আমরা নিজ বাড়িতে লাশ বুঝে নিতে চাই। পারিবারিক গোরস্থানে আমাদের সন্তানকে দাফন করতে চাই।

আরও পড়ুন
1 মন্তব্য
  1. shikha বলেছেন

    We are very sad about this news. Quamtum school should be careful with our child, he is given there for study not to be killed.

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।