খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ’র সশস্ত্র কর্মী আটক

খাগড়াছড়িতে আটক ইউপিডিএফ’র সশস্ত্র কর্মী
খাগড়াছড়ির মাটিরাঙায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির(পিসিজেএসএস-সন্তু গ্রুপ ) কর্মীকে হত্যা চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে জনতার হাতে আটক হয়েছে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ) এর সশস্ত্র এক কর্মী। সোমবার রাত ১০ টার দিকে মাটিরাঙার তপ্ত মাষ্টারপাড়া এলাকা থেকে জনতা অনিমেষ চাকমা(১৯) নামে ইউপিডিএফ’র এক কর্মীকে আটক করে পুলিশে হস্তান্তর করে। আটককৃত যুবক মাটিরাঙার বাইল্যাছড়ি এলাকার বিবর্তন চাকমার ছেলে এবং ইউপিডিএফ এলিন গ্রুপের সশস্ত্র কর্মী বলে জানিয়েছেন মাটিরাঙা থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সাহাদাত হোসেন টিটু।
নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ৯টার দিকে মাটিরাঙার তপ্ত মাষ্টারপাড়া এলাকায় ইউপিডিএফ’র স্থানীয় সশস্ত্র কমান্ডার এলিন চাকমার নেতৃত্বে ৫-৬ জনের একটি দল পিসিজেএসএস-সন্তু গ্রুপের কর্মী আশুতোষ ত্রিপুরাকে হত্যা করতে তার বাড়িতে হামলা চালায়। ভুল লক্ষ্য বস্তুর কারণে সে প্রাণে বেঁচে গিয়ে বাড়ি থেকে জঙ্গলে পালিয়ে যায়। এসময় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে জনগণ বের হয়ে সশস্ত্র গ্রুপের এক কর্মীকে আটক করে গণধোলাই দেয়। যৌথ বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে গেলে তাকে তাদের কাছে সোপর্দ করে। পরে যৌথ বাহিনীর সদস্যরা মাটিরাঙা সেনা জোনের স্টাফ অফিসার মেজর ইমরুল কায়েস মেহেদীর নেতৃত্বে সন্ত্রাসীদের পালানোর সড়কে তল্লাশি চালিয়ে একটি বিদেশী পিস্তল, চার রাউন্ড গুলি ও দুটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়।
মাটিরাঙা থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সাহাদাত হোসেন টিটু জানান, হত্যাচেষ্টার অভিযোগে পিসিজেএসএস কর্মী আশুতোষ ত্রিপুরা ইউপিডিএফ’র আঞ্চলিক সশস্ত্র কমান্ডার এলিন চাকমা ও অনিমেষ চাকমার নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ৩-৪ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেছে। একই ব্যক্তিদের আসামী করে পুলিশ বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে পৃথক আরেকটি মামলা দায়ের হয়েছে। আটককৃত অনিমেষ চাকমাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।
ইউপিডিএফ’র মুখপাত্র নিরন চাকমা আটককৃত অনিমেষ চাকমার সাথে ইউপিডিএফ’র কোন সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে এটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাজানো ঘটনা বলে জানান

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।