খাগড়াছড়িতে নৌকার পক্ষে জনসংহতি সমিতির সমর্থন

দীর্ঘ দুই দশকেও পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন হয়নি। কিন্তু জনসংহতি সমিতি আশা করে সরকার চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নে সামনের সময়ে আন্তরিকতা পোষণ করবেন। যার লক্ষ্যে জনসংহতি সমিতি(এমএন লারমা সমর্থিত) আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগকে জয়ী করতে কাজ করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। রোববার দুপুরে খাগড়াছড়ি সদরের পানখাইয়াপাড়া মারমা উন্নয়ন সংসদ মিলনায়তনে হেডম্যান কার্বারীদের সাথে আলোচনা সভায় জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রæপের শীর্ষ নেতারা একথা বলেন।
পাহাড়ের বর্তমান পরিস্থিতিতে গেরিলা যুদ্ধ শুরুর পরিবেশ নেই জানিয়ে জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রæপের কেন্দ্রীয় সহ যুব বিষয়ক সম্পাদক প্রীতিময় চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় আমরা হতাশ। তাই মাঝেমধ্যে জনসংহতি সমিতির প্রতিষ্ঠাতা কেন্দ্রীয় সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা ওরফে সন্তু লারমা পাহাড়ে আবারও সশস্ত্র আন্দোলন গড়ে তোলার হুশিয়ারী দেন। কিন্তু সেটি আর সম্ভব নয়। আমরা এখন আশাবাদী সরকারই পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করবে। এ কারণে জনসংহতি সমিতি এবার খাগড়াছড়ি আসনে কোন প্রার্থী না দিয়ে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষেই কাজ করবে।
কেন্দ্রীয় ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সুদর্শন চাকমা বলেন, ইউপিডিএফ এবার নির্বাচনে সিংহ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ¦ীতা করছে। তাদের হিং¯্র মানসিকতার সাথে প্রতীকের মিল রয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে ভ্রাতৃঘাতী সংঘাতের জন্য ইউপিডিএফ দায়ী। তাদের সামাজিক ও রাজনৈতিক ভাবে প্রত্যাখ্যান করার এখন সময় এসেছে। চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে জয়ী করে আনতে হেডম্যান ও কার্বারীদের সহযোগীতা কামনা করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা গ্রæপের রাজনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক বিভূরঞ্জন চাকমা, কার্বারী এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি রণিক কুমার ত্রিপুরা অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।