খাগড়াছড়িতে যানজট রোধ ও পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা ফেরাতে মেয়রের উদ্যোগ

শনিবার(১২ অক্টোবর) দুপুর ২ টা। খাগড়াছড়ি শাপলা চত্বর থেকে পৌরসভা কার্যালয়ের সামনের দুইপাশের সড়কে যত্রতত্র পার্কিং করা সাজেক থেকে আসা পর্যটকবাহী চাঁদের গাড়ি ও পিকআপ। এতে শহরের ব্যস্ততম এই সড়ক ব্যবহারকারীদের অসুবিধায় পড়তে হয়। আর প্রতি শুক্র ও শনিবার সহ বন্ধের দিনগুলোতে পর্যটকবাহী পরিবহনের যত্রতত্র পার্কিংয়ে এর মাত্রা আরও ভয়াবহ হয়ে পড়ে। প্রতি সপ্তাহের এমন চিত্রের ভিন্ন ছিল না শনিবার দুপুরেও। শাপলা চত্বরের আশপাশে থাকা খাবার হোটেল গুলোতে দুপুরের খাবার খেতে পর্যটকরা নামার পর গাড়ীগুলো সড়কের দুইপাশ দখল করে দাড়িঁয়ে ছিল। এমন সময় খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র রফিকুল আলমের উদ্যোগে মুর্হুতেই পাল্টে যায় চিত্র। অবৈধ ভাবে পার্কিং করা রাখা চাঁদের গাড়ি-পিকআপের চালকদের ডেকে পৌরসভা ভবনে নেয়া হয়।

পৌর মেয়রের রুমে ১৮ জন চালককে নেয়ার পর মেয়র রফিকুল আলম কথা বলেন পরিবহন সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দের সাথে। পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে গতসপ্তাহ পৌর মেয়রের সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত সমূহ পরিবহন শ্রমিকরা কেন মানা হচ্ছে না তা জানতে চাইলে কোন উত্তর দিতে পারেনি নেতৃবৃন্দ। পরবর্তীতে যত্রযত্র পার্কিং করে শহরে যানজট সৃষ্টি করা হলে সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে সর্তক করেন পৌর মেয়র।

পৌর মেয়র রফিকুল আলম বলেন, ১৮ জন চালকের মধ্যে মাত্র ৮ জন চালক লাইন্সেস নিয়ে সড়কে গাড়ি চালাচ্ছে। বাকীদের মধ্যে মাত্র একজন লাইন্সেসের জন্য আবেদন করেছে। খেয়ালখুশি মতো সড়কে পরিবহন চালাতে দেয়া হবে জানিয়ে যানজটমুক্ত পর্যটন বান্ধব পৌর শহর নির্মাণে মেয়রের গৃহীত পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে সকলের সহযোগীতা কামনা করেন তিনি।

যানজটমুক্ত ও পর্যটন বান্ধব পৌর শহর নির্মাণে মেয়রের পরিকল্পা ও কিছু সিদ্ধান্ত:
১। সাজেক-দীঘিনালা সড়ক থেকে আসা পরিবহন গুলো ন্যান্সিবাজার এলাকায় যাত্রী নামিয়ে দিবে এবং শহরের কোথাও পর্যটক বা যাত্রীদের নামানোর অজুহাতে দাঁড়াতে পারবেনা।
২। পানছড়ি থেকে আসা পরিবহনগুলো স্বণির্ভর বাজারে যাত্রী সাধারণকে নামিয়ে দিবে।
৩। ঢাকা-চট্টগ্রাম, মাটিরাঙ্গা ও মহালছড়ি থেকে আসা পরিবহনগুলো বাস টার্মিনাল এলাকায় যাত্রী সাধারণকে নামিয়ে দিবে।
৪। খাগড়াছড়ি শহরের প্রধান সড়ক চার লেনে উন্নীত করা।
৫। আধুনিক বাস টার্মিনাল নির্মাণ।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।