খাগড়াছড়িতে সিএস অফিসের প্রধান অফিস সহকারীর অনৈতিক অর্থ গ্রহণ

স্বাস্থ্য সার্টিফিকেট ফাঁদে মানুষ

খাগড়াছড়িতে সিএস (সিভিল সার্জন) অফিসে প্রকাশে চলছে অনৈতিক অর্থ লেনদেন (ঘুষ) বার্ণিজ্য। তবে মোটা অঙ্কের না হলেও স্বাস্থ্য সার্টিফিকেটে স্বাক্ষর নিয়ে এমন কর্মকান্ডে ক্ষিপ্ত সাধারণ সার্টিফিকেট প্রত্যাশীরা।

আজ বুধবার সকাল থেকে দিনে দুপুরে সার্জন ডা. নুপুর কান্তি দাশের নাম ভাঙ্গিয়ে সাধারণ মানুষের কাজ থেকে কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে দেওয়ার নামে এই যজ্ঞ চালাচ্ছে প্রধান অফিস সহকারী রতন ময় চাকমা।

তাঁর সহযোগি হিসেবে রয়েছে ঐ অফিসের এক নারীও। অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে মেলে সত্যতাও। তারপরও প্রধান অফিস সহকারী রতন ময় চাকমা এবং ওই ঘটনায় যুক্ত নারী বার বার এ ঘটনায় সিভিল সার্জন এর সাথে কথা বলাসহ দায় এড়ানো চেষ্টা অব্যাহত রাখেন।

স্থানীয় অভিযোগকারীরা জানান, মোটর ড্রাইভিং উইথ বেসিক মেইনটেন্যান্স কোর্স এর সরকারি চাকরীর জন্য প্রার্থীর স্বাস্থ্য বিষয়ক সার্টিফিকেট নিতে গেলে সংশ্লিষ্টরা অনৈতিক অর্থ দাবী করে বসে। স্বাক্ষর দিতে জনপ্রতি ৫শ থেকে ২শ টাকা হারে এই অর্থ নিয়ে নিজেই স্বাক্ষর করে দেন তিনি। এ সময় সিএস অফিসে কর্মরত প্রধান অফিস সহকারী রতন ময় চাকমা নানা অসংগতিপূর্ণ কর্মকান্ডের তথ্য বেরিয়ে আসে।

এবিষয়ে বার বার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও সিভিল সার্জন ডা. নুপুর কান্তি দাস ফোন রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।