ঘরের বাইরে যাবেন না, ফোন করলেই পৌঁছে যাবে বাজার

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের ‘ডোর টু ডোর শপ’

করোনা ভাইরাসের কারণে বান্দরবান অনেকটাই লকডাউন। বান্দরবানের ওষুধের দোকান আর মুদির দোকান ছাড়া সব দোকানপাঠ এখন বন্ধ । বন্ধ করা হয়েছে সাপ্তাহিক হাট-বাজার এবং সব ধরনের যানবাহন চলাচল । তাই নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য কেনা-কাটায় পড়তে হচ্ছে বড় ধরনের বিড়ম্বনা। কিন্তু সেই বিড়ম্বনা থেকে স্থানীয় বাসিন্দাদের মুক্তি দিতে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য ডেলিভারি চার্জ ছাড়ায় পৌঁছে দিবে কয়েকটি সেবামূলক সংগঠনের কর্মীরা।

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা এমনই ব্যতিক্রমি উদ্যোগ নিয়েছেন ।

আজ রবিবার (২৯মার্চ) বিকেলে বান্দরবান জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সেবামূলক সংগঠনের নেতাদের নিয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয় ।

জানা যায়, লক ডাউনের কারণে বান্দরবানের পৌর এলাকার বেশির ভাগ মানুষ তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্য ক্রয় করতে বিড়ম্বনায় পড়ছেন । এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে বান্দরবান রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট এর তত্ত্বাবধানে বান্দরবান স্টুডেস্ট’স এসোসিয়েশন, বিডি ক্লিন-বান্দরবান, বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্ট’স এসোসিয়েশন, বান্দরবান শাখা, বান্দরবান মেডিকেল স্টুডেন্ট’স এসোসিয়েশন এর সদস্যরা এই কাজে এগিয়ে এসেছেন । কোন প্রকার ডেলিভারি চার্জ ছাড়ায় নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য সামগ্রী পৌঁছে দিবে তারা ।

আরো জানা যায়, প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত খাদ্যদ্রব্য সামগ্রীর অর্ডার নেওয়া হবে। এছাড়াও বিকাল ৩ টা থেকে ৬ টার মধ্যে ক্রেতার ঘরে পণ্য পৌঁছে দেয়া হবে। এর জন্য বাড়তি কোন চার্জ নেওয়া হবে না। ০১৩০৯৭৪৩৮০১ এবং ০১৩০৯৭৪৩৮০২ এই দুটি হটলাইন নম্বরে ফোন করে অর্ডার দেয়া যাবে । তবে বান্দরবান পৌর এলাকায় এই সেবা কার্যক্রম চালু রাখা হবে বলে জানা যায় ।

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা জানান, এই সংকটময় মুহূর্তে মানুষের যাতে কোন ধরনের সমস্যা না হয় সে লক্ষ্যকে সামনে রেখে পার্বত্য জেলা পরিষদ বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ।

তিনি আরো বলেন, এরইমধ্যে করোনা সচেতনতায় শহর ও গ্রামে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা রাখতে জীবাণুনাশক ছিটানো হচ্ছে । এছাড়াও সংক্রমণ রোধে বিভিন্ন ভাষায় অনুদিত লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে । এছাড়াও সাতটি উপজেলায় দুস্তদের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে খাদ্যদ্রব্য ।

আরও পড়ুন
Loading...