চোখের জলে বিদায় নিলেন উপ সচিব বিদুষী চাকমা

বাংলাদেশ সরকারের উপ সচিব, বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের ২০ তম ব্যাচের চৌকস কর্মকর্তা বিদূষী চাকমাকে চোখের জলে বিদায় জানালেন তাঁর স্বজন, বন্ধু বান্ধব এবং শুভানুধ্যায়ীরা।

গত শুক্রবার ভোর ৪.১০ মিনিটে ঢাকার পান্থপথের বি আর বি হসপিটালে সবাইকে কাঁদিয়ে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেলেন তিনি। রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার কেপিএম স্কুলের ১৯৮৯ ব্যাচের সাবেক এই শিক্ষার্থী অবশেষে হার মানলেন ক্যান্সারের কাছে। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের উপ সচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

তাঁর স্বামী রাজেন্দ্রলাল তালুকদার বাংলাদেশ ব্যাংকের মহা ব্যবস্থাপক পদে কর্মরত আছেন। তাঁর একমাত্র মেয়ে সুস্মিতা চাকমা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করছেন।

তাঁর মৃত্যুতে চন্দ্রঘোনা ফোরাম সহ তাঁর বন্ধু মহল, পরিবার পরিজন এবং শুভানুধ্যায়ীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তাঁর মৃত্যুতে শোকাহত হয়ে কেপিএম স্কুলের তাঁর সাবেক সহপাঠী উত্তম কুমার দাশ এক ফেইসবুক পোস্টে লিখেন।

এভাবেই ছবি হয়ে গেলি বন্ধুঃ
সরকারের উপ সচিব, বিদূষী চাকমা আর নেই। শুক্রবার ভোর ৪.১০ মিনিটে ঢাকার পান্থপথের বি আর বি হসপিটালে সবাইকে কাঁদিয়ে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে গেল আমাদের এই গুনী বন্ধুটি ।

জীবনের অনেক সাফল্য তোর কাছে ধরা দিলেও শেষ পর্যন্ত ক্যান্সারের কাছে পরাজিত হয়ে গেলি বন্ধু। যাওয়ার আগে অনেক কষ্ট পেয়ে গেছিস। পরিবারের সর্বোচ্চ চেষ্টার পরেও, আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান তোকে বাঁচিয়ে রাখতে পারেনি।

ঈশ্বরের কাছে নিরন্তর প্রার্থনা মৃত্যুর পর তোকে যেন উনার শ্রেষ্ঠ আসনে আসীন করেন। আমাদের সবাইকে ক্ষমা করে দিস বন্ধু। তোর পরিবারের জন্য গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করছি। ওপারে ভালো থাকিস প্রিয় বিদূষী।

এদিকে আজ শনিবার কাপ্তাই উপজেলার কেপিএম চন্দ্রঘোনা তালুকদার পাড়ায় তাঁর মরদেহ নিয়ে আনা হলে সর্বস্তরের পক্ষ হতে তাঁকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এইসময় রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুনতাসির জাহান তাঁর মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এইছাড়া রাঙামাটি জেলা পরিষদ এর পক্ষ হতে জেলা পরিষদ সদস্য দীপ্তিময় তালুকদার তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে অনিত্য সভা শেষে তাঁকে তালুকদার পাড়া শশ্মানে দাহ করা হয়।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।