ছাত্র রাজনীতির ভেতর বাহির আর ক্যাম্পাস প্রেম নিয়ে শান্তনু চৌধুরীর উপন্যাস

উপন্যাস‘পর সমাচার এই যে’ ও ‘অন্য সময়ের প্রেম’ এবং সাংবাদিক ও সাহিত্যিক শান্তনু চৌধুরী
সাংবাদিক ও সাহিত্যিক শান্তনু চৌধুরীর লেখা দুটি উপন্যাস এবার এসেছে অমর একুশে গ্রন্ধমেলায়। ছাত্র রাজনীতি, খুন-খারাপি, হল দখল আর ক্যাম্পাস প্রেম নিয়ে পার্ল পাবলিশার্স থেকে প্রকাশ হয়েছে ‘অন্য সময়ের প্রেম’। দাম দুইশত টাকা। প্রচ্ছদ করেছেন অরূপ মান্দি। একটি মেয়ের চাওয়া-পাওয়া, হতাশা আর রোমান্টিক জীবন পাওয়ার আকুতি নিয়ে উপন্যাস ‘পর সমাচার এই যে’ প্রকাশ করেছে দেশ পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ হোসাইন তৌফিক ইফতিখার। দাম দুইশত টাকা।
মূলত রোমান্টিক ধারার এবং বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ভিত্তিক প্রেমের উপন্যাস হলেও উপন্যাস দুটিতে রয়েছে এক অন্য ভিন্নমাত্রিকতা। এর কারণ বিষয়বস্তু নির্বাচন। ‘অন্য সময়ের প্রেম’ উপন্যাস সম্পর্কে প্রকাশক জানাচ্ছেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের পরতে পরতে রোমান্টিকতা। চারদিকে সবুজ যেন অবুঝের মতো হাতছানি দিয়ে ডাকছে, প্রেমে পড়তে। ক্যাম্পাস প্রেম। কিন্তু তার সঙ্গে জড়িয়ে যায় ছাত্র রাজনীতির একটা সময়। সেটা নষ্ট সময় বা মৌলবাদের বন্ধ্যাত্ব কাটিয়ে আলোর দিকে যাত্রা। কিন্তু সেই সময় কতোটা ধরে রাখতে পেরেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগঠনের পরবর্তী নেতারা। পরিবার চেয়ে আছে প্রতিষ্ঠার আশায়। ভালোবাসার মানুষটিও চলে যেতে বাধ্য হচ্ছে অন্যের হাত ধরে। এ সবের মূল কারণ ছাত্র রাজনীতি। এর মধ্যে প্রতিদিন মারামারি, খুন-খারাপিতো ঘটছেই। উপন্যাসের আড়ালে সেই সত্য তুলে ধরেছেন শান্তনু চৌধুরী। আগামীতে ছাত্র রাজনীতির স্বরূপ নিয়ে কেউ গবেষণা করলে সেখানেও তথ্যসূত্র হিসেবে বইটি কাজে লাগবে।’ উপন্যাসটি লিখতে গিয়ে শান্তনু চৌধুরী যে বেশ খেটেছেন সেটা বোঝা যাবে তার স্বীকারোক্তিতে। তিনি বলছেন, ‘চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রাজনীতির একটা সময়, সেই সময়ের ক্ষমতার দ্বন্ধ, হল দখল, শাটল ট্রেনের বগি দখল, গ্রুপিং বা হল’এর রাজনীতি, একই সঙ্গে ক্যাম্পাস প্রেম উঠে এসেছে এই উপন্যাসে। চেষ্টা করেছি ঐতিহাসিক সত্যের কাছাকাছি থেকে লিখতে। আমার দিনলিপিতো ছিলই, এছাড়া সহযোগিতা নিয়েছি সেই সময়ের জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্ট, বøগ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, সাংবাদিক, ছাত্রনেতা থেকে শুরু করে প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান। সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা। তবে এটা যেহেতু গল্প, ইতিহাস পাঠ নয় তাই গল্প বলার ঢঙে অনেক গল্পই এসেছে। এর সঙ্গে নাম বা ঘটনা মিলে গেলে তা কাকতাল মাত্র।’
পর সমাচার এই যে প্রসঙ্গে প্রকাশক ফ্ল্যাপে বলছেন, ‘মেয়েটির নাম মেঘলা। ঝিরিঝিরি হাসিতে ভরপুর। হাসতে থাকে, ভাসতে থাকে, উড়তে থাকে, পুড়তে থাকে তার দু’এক পশলা আবেগ। সেই আবেগে ভর করে চিঠি লেখে ও। লিখে চলছে, চিরকুট, কার্ডের ভেতর বা রোল টানা কাগজে। বানান ইচ্ছে করে ভুল করছে ও, ছেলেটিকে রাগিয়ে দেবে বলে। সেই চিঠি কখনো বন্ধুতার, কখনো ভালোবাসার, কখনো প্রেমের। ওর ও ইচ্ছে জাগে, কেউ ওকে লিখুক। খুব সামান্য দাবি, চিঠি দিও। পথ চেয়ে আছে, ফিরতি চিঠির। মাঝে মাঝে করুণ আবদার, কিছুই লেখার নেই, তবু লিখো। এই জীবনে মেয়েটির সেই আবদার কি পূরণ হবে? ওর হাতে কি পৌঁছাবে অক্ষরের পাড়বোনা চিঠি। সে কি কখনো পাবে কাঙ্খিত চিঠি? পর সমাচার এই যে, কী বলে?’ মেঘলা নামের মেয়েটির সে ইচ্ছা পূরণ হয়েছে কিনা জানতে হলে পড়তে হবে পুরো উপন্যাস।
শান্তনু চৌধুরী বেশিরভাগই লিখেন রোমান্টিক ধারার। তিনি ভালোবাসার নাগরিক মানুষ। নদী, ফুল, পাখি, ডাহুকের বিচিত্র ডাক তাকে বিমোহিত করে। সমান তালে লিখে চলেছেন গল্প, কবিতা, উপন্যাস আর প্রাত্যহিক যাপিত জীবনের কথা। প্রকাশিত হয়েছে বেশ কয়েকটি বই। এর মধ্যে, কথা প্রসঙ্গে-, তারার অন্তরালে, প্রথম চিঠি, ফিরে এসো, নারীসঙ্গ, অন্য সময়ের প্রেম, পর সমাচার এই যে উল্লেখযোগ্য। চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় জন্ম নেয়া শান্তনু চৌধুরী প্রাতিষ্ঠানিক পাঠ শেষ করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। কাগুজে, অন্তর্জালিক,শ্রুতিনির্ভর ও দৃশ্যমান সংবাদ মাধ্যমে কাজ করেছেন। বর্তমান ব্যস্ততা টেলিভিশনের অন্দরমহলে।

আরও পড়ুন
Loading...