থানচিতে চিকিৎসা না পেয়ে প্রসূতির মৃত্যু !

%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%b8%e0%a7%82%e0%a6%a4%e0%a6%bf%e0%a6%b0-%e0%a6%ae%e0%a7%83%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a7%81বান্দরবানের থানচিতে চিকিৎসা সেবা না পেয়ে এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দীর্ঘ দিন ধরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের চিকিৎসক ও নার্স অনুপস্থিত থাকায় প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ স্বজনদের।

স্থানীয়রা জানান, থানচির ছাংন্দাক পাড়ার বাসিন্দা মংয়ই মারমার স্ত্রী হ্লানুচিং মারমা (৩২) শুক্রবার সকালে প্রসব ব্যাথা অনুভব করলে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সকাল থেকে তিন চারবার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে চিকিৎসক ও নার্স কাউকে না পেয়ে তার নিজ বাড়ীতেই ছেলে সন্তান প্রসব হয় ।

হ্লানুচিং মারমার স্বামী মংয়ই মারমা জানান, শুক্রবার বিকাল ৩টার দিকে তার স্ত্রীর প্রসব পরবর্তী প্রচুর পরিমান রক্তক্ষরণ হলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মস্থলে ডাক্তার আসছে কিনা পূনরায় যোগাযোগ করতে গেলে ডাক্তার বা নার্স কাউকে পাওয়া যায়নি। তিনি আরো বলেন, পরে থানচি বাজার থেকে একটি জীপ (চান্দের গাড়ি) করে প্রসূতিকে থানচি থেকে ৮৫ কিঃমিঃ দুরে বান্দরবান সদর হাসপাতালে আনার পথে কমলা বাগান নামক স্থানে পথেই সন্ধ্যা ৭ টার সময় তার স্ত্রীর মৃত্যু হয়।

এই ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের কর্মকর্তা ডা. মংটিংঞোর সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি বান্দরবান সদরে,আমার পরিবর্তে ডাক্তার রিপন দত্ত ও রণধির বড়ুয়া থানচিতে রয়েছে তাদেরকে ফোন করেন। পরে ডাক্তার রিপন ও রণধির বড়ুয়াকে কল করা হলে তারা ফোন রিসিভ করেনি।

এব্যাপারে থানচি উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা বলেন,স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক এবং নার্স উপস্থিত না থাকায় প্রাণপন চেষ্টা করার পরেও প্রসূতিকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। প্রসূতি হ্লানুচিং মারমার মৃত্যুর জন্য ডাক্তারদের অনুপস্থিতিকেই দায়ী করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।