থানচিতে বিএনকেএস ও গ্রাউস কর্তৃক বিতরণকৃত পানির ট্যাংক পেলো প্রভাবশালীরা !

বান্দরবানে থানচি উপজেলায় প্রভাবশালী ও পাড়ার প্রধান (কারবারী)রা পেলো ২০০ লিটার ওজনের পানির ট্যাংক। শুধু তাই নয়,এই ট্যাংক বিতরণে কৃষকদের কাছ থেকে দুই হাজার টাকা দাবী করায় স্থানীয় দরিদ্র কৃষকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে প্রবল বৃষ্টি, বন্যা, ঘুর্নিঝড় ও খরা মৌসুমে আকস্মিক দুর্যোগপূর্ণ এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবারের তালিকা করে স্বল্প পরিষরে সহযোগীতা জন্য বাংলাদেশ সরকার ও স্থানীয় প্রশাসন দুইটি এনজিওকে অনুমোদন প্রদান করে। এনজিও সংস্থা বলিপাড়া নারী কল্যান সমিতি (বিএনকেএস) ও গ্রাউস এর ফুড এন্ড এগ্রিকালচার অরর্গানাজেশন অফ দ্যা ইউনাইটেড ন্যাশন (FAO) এর প্রকল্পের আওতায় প্রায় ২০০জন কৃষককে তালিকা প্রনয়ন করে।

আরো জানা যায়,ঐসব কৃষকদেরকে স্থানীয় কৃষি বিভাগের সহযোগীতায় কাজু বাদাম ও কফি চাষের উপর শুধুমাত্র ১ দিনের জন্য প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছিল। প্রশিক্ষণ শেষে চাষীদের উৎসহ বাড়াতে সেচ সুবিধা জন্য ২শ জন কৃষক থেকে প্রায় ৫০ জন কৃষককে যাচাই বাছায় করে পানির ট্যাংক বিতরনের ব্যবস্থা করেন এই দুই এনজিও সংস্থা।

থানচি বাজারের ইউসুফ জানান,থানচি উপজেলার অনেক এনজিও সংস্থা আছে। তারা জানতে পারলে এনজিওদের বিভিন্ন অসুবিধা হতে পারে । যেমন হেলেন কেয়ার,গ্রাউস স্যাপলিং প্রকল্পের আওতায় স্বাস্থ্য, শিক্ষাসহ বিভিন্ন প্রকল্প থানচি উপজেলার ৪ ইউনিয়নে থাকলে এই বিষয়ে স্থানীয় ক্ষোধ সংবাদকর্মীরা জানেনা।

হত দরিদ্র কৃষকরা জানান,১ দিনের প্রশিক্ষনে আমরা আমাদেরকে বিশুদ্ধ পানির বোতল ছাড়া এক বেলা প্যাকেট ভাত ও ৫শত টাকা দিয়েছে। কিছু বুঝানোর আগেই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ত্যাগ করতে হয়েছে। আমাদের কাজু বাদাম ও কফি বীজ, সার ও বিভিন্ন উপকরন দেয়া হয়নি। অন্যান্য সরকারি প্রশিক্ষনে সাংবাদিক, গোয়েন্দা সংস্থা লোক ছাড়াও প্রশাসনিক কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকেন কিন্তু এ প্রশিক্ষনের তাদের দেখা যায়নি, এনজিওগুলো যা ইচ্ছা তাই করে। সংস্থার কর্মীরা আমাদের বলেন,সাংবাদিক বা অন্য কাউকে না জানতে।

থানচি উপজেলার হেডম্যান পাড়ার বাসিন্দা মং চ থোয়াই বলেন, আমরা কাছ থেকে ট্যাংক দেওয়ার কথা বলে ২হাজার টাকা দাবী করেছিলো, আমি টাকাও দিতে পারিনি, ট্যাংক নিতেও পারিনি।

আজ সোমবার ২৮ অক্টোবর বলিপাড়া ও থানচি দুই ইউনিয়নের ২০০ লিটার পানির ট্যাংক বিতরন করে উল্লেখিত প্রকল্পের উপকারভোগী কৃষকদের মাঝে। পানির ট্যাংক পাওয়া ৫০ জনের মধ্যে থানচি সদর ইউনিয়নের দুই দুইবার এর চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সাবেক প্রধান শিক্ষক নসরাং মাস্টার ও দুইবার ইউপি চেয়ারম্যান, একবার উপজেলা চেয়ারম্যান খামলাই ম্রো এর আপন বড় ভাই রেংনিং ম্রোসহ অনেক থানচি উপজেলার প্রভাবশালী কতিথ কৃষককে তাদের পানির ট্যাংক বিতরণ করা হয় ।

আরো জানা গেছে,আজ সোমবার সকাল ১০টায় পৃথকভাবে পানির ট্যাংক বিতরনের সময় কোন সাংবাদিক বা গোয়েন্দা সংস্থা ও প্রশাসনের প্রতিনিধি কাউকে আমন্ত্রণ করা হয়নি, নিজেদের পছন্দের লোকদের বিতরণ করা জন্য।

এ সময় থানচি সদর ইউনিয়ন পরিষদ ও ৩৬০ নং কোয়াইক্ষ্যং মৌজা হেডম্যান মাংসার ম্রো, এফ এ ও ন্যাশনাল কনসালডেন্ট ক্যসা প্রু মারমা (কোং) বিএনকেএস মাঠ সহায়ক অংশৈসিং মারমা গ্রাউজ এর মাঠ সহায়ক অংচনু মারমা এবং কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরে কাজু বাদাম ও কফি চাষের উপর কৃষকদের প্রশিক্ষক ও উপ সহকারী কৃষি অফিসার মংচ প্রু মারমা ও বিপ্লব মারমা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ের জানতে প্রতিবেদক এফ এ ও ন্যাশনাল কনসালডেন্ট ক্যসা প্রু মারমা (কোং) এবং কৃষি বিভাগের উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মংচ প্রু মারমা’কে অনেকবার ফোন করা হলেও ফোন রিসিভ না করায় তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।