দীঘিনালায় গভীর রাতে পাঠ্যবই পাচারকালে ট্রাক জব্দ, আটক ২

খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় সরকারি গুদাম থেকে পাচারকালে ট্রাকসহ ২০২২ সালের মাধ্যমিকের পাঠ্যবই জব্দ করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাহমিদা মুস্তফা। এসময় ট্রাকচালক, হেলপার পালিয়ে গেলেও পাঠ্যবই ট্রাকে লোড করার বিষয়ে সন্তোষজনক জবাব দিতে না পারায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের অফিস কাম সহকারী গৌতম চক্রবর্তী ও অফিস সহায়ক মো. রুবেলকে আটক করে দীঘিনালা থানা পুলিশ।

পুলিশ জানায়,গত বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে মাধ্যমিকের পাঠ্যবই পাচার হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাহমিদা মুস্তফা সহ দীঘিনালা থানার ডিউটিরত ফোর্স ট্রাকসহ (ঢাকা মেট্রো-ট ১৬-২১১৪) মাধ্যমিক পাঠ্যবই জব্দ করে। এসময় পাঠ্যবই ট্রাকে লোড করার বিষয়ে সন্তোষজনক জবাব দিতে না পারায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের অফিস কাম সহকারী গৌতম চক্রবর্তী ও অফিস সহায়ক মো. রুবেলকে আটক করা হয়। পরবর্তীতে সাধারণ ডায়েরির ভিত্তিতে (ডায়েরি নং-১৪১০/৩১-০৩-২২) আটককৃতদের ফৌজদারি কার্যবিধি ৫৪ ধারায় আদালতে প্রেরণ করার প্রক্রিয়া চলছে।তাছাড়া বই পাচারের সাথে চালক ও হেলপারের সম্পৃক্ততা আছে কিনা তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে দীঘিনালা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি উষা আলো চাকমা দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে রাতের আধারে বই পাচারের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাহমিদা মুস্তফা জানান, গভীর রাতে ট্রাকে মাধ্যমিকের পাঠ্যবই লোড করতে দেখে সন্দেহ হলে উপজেলায় ডিউটিরত আনসার সদস্য ও স্থানীয় কয়েকজন আমাকে বিষয়টি অবগত করেন। এসময় আমি দীঘিনালা থানার পুলিশ ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে শ্রমিক ডেকে ট্রাক থেকে পাঠ্য বইগুলো আনলোড করাই ৷ ঘটনাস্থল থেকে ট্রাকের চালক ও হেলপার পালিয়ে গেলেও পরবর্তীতে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে কর্মরত দু’জন এ বিষয়ে সন্তোষজনক কোন জবাব দিতে না পাড়ায় তাদেরকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।