দীঘিনালায় চট্টগ্রামের জিওসি মেজর জেনারেল জাহাঙ্গীর কবীর তালুকদার

দীঘিনালায় চট্টগ্রামের জিওসি মেজর জেনারেল জাহাঙ্গীর কবীর তালুকদার
সমরে আমরা শান্তিতে আমরা সর্বত্র দেশের তরে এ শ্লোগানে, শনিবার সকালে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা সেনা ট্রেনিং সেন্টারে সেনাবাহিনীর নতুন সদস্যদের কুচকাওয়াজ ও শপথ গ্রহন অনুষ্ঠিত হয়েছে । চট্টগ্রামের এরিয়া কমান্ডার এবং ২০৩ পদাতিক ডিভিশনের অধিনায়ক মেজর জেনারেল জাহাঙ্গীর কবীর তালুকদার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
এসময় তিনি প্রশিক্ষিত নবীন সেনাসদস্যদের উদ্দ্যেশ্যে বলেন, দেশ ও জাতির প্রয়োজনে কঠিন প্রশিক্ষণকে কাজে লাগিয়ে সেনাবাহিনীতে নিজেদের আলোকিত হবার সুযোগ রয়েছে। আদর্শ ও নির্ভীক সৈনিক হিসেবে নিজেকে নিয়োজিত রাখতে হবে। আত্মবিশ্বাস নিষ্ঠা ও কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে দক্ষ সেনাসদস্য হিসেবে নিজেদের গড়ে তোলার আহবান জানান।
শনিবার দুপুরে দীঘিনালার কবাখালীতে নবনির্মিত সেনা ট্রেনিং সেন্টারে এসময় তিনি ৯’শ ৪৯ জন নব নিযুক্ত তরুণ সেনা সদস্যকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে স্বাগত জানান। এসময় ২০৩ পদাতিক ডিভিশনের প্রশিক্ষণ পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জগলুল আহমেদ চৌধুরী, খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়নের অধিনায়ক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল মোতালেব সাজ্জাদ মাহমুদ, দীঘিনালা জোন অধিনায়ক লে: কর্ণেল ফেরদৌস মাহমুদ জিয়াউদ্দিন, ট্রেনিং সেন্টারের অধ্যক্ষ লে: কর্ণেল তাজুল এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম সালাউদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে নবীন সৈনিকরা নিজ নিজ ধর্মের গ্রন্থে হাত রেখে দেশ মাতৃকার জন্য জীবন উৎসর্গ, শৃঙ্খলা ও দায়িত্ব পালনের শপথ নেন। নবীন সৈনিকরা দীর্ঘ ছয় মাসের মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে সৈনিক হিসেবে যোগ দিলেন। ছয় মাসের প্রশিক্ষণে বিভিন্ন ইভেন্টে সেরা অবস্থানকারী, চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ হওয়াদের হাতে ট্রফি তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মেজর জেনারেল জাহাঙ্গীর কবির তালুকদার। কুচকাওয়াজ পরিচালনা করেন মেজর আব্দুল্লাহ আল মামুন।
উল্লেখ্য, দীঘিনালা মাইনী সেনা ট্রেনিং সেন্টারে এটি তৃতীয় ব্যাচের প্রশিক্ষণ। ১৭-৩ রিক্রুট ব্যাচ এডহক ফরমেশন রিক্রুট ট্রেনিং সেন্টারে এ ব্যাচে রিক্রুটস হয় ১০১৬ জন। এরমধ্যে প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করে ৯৪৯ জন রিক্রুটস।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।