দীঘিনালায় রাবার বাগান কর্তন নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

খাগড়াছড়ির দীঘিনালার রশিক নগর এলাকায় একটি রাবার বাগান কর্তন নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ উঠেছে।

এক পক্ষ বলছে তাদের নিজেদের বন্দোবস্তিকৃত জায়গা জবর দখল করে সেলিম এন্ড ব্রাদার্স প্রতিষ্ঠানের নামে রাবার বাগান সৃজন করছিল। সেখানে বাধা দেওয়ায় নিজেরা লাগানো রাবার চারা কেটে গাছকাটার মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

অপরদিকে সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের পক্ষ থেকে দাবী করা হচ্ছে, তাদের প্রতিষ্ঠানের সৃজিত বাগান কেটে বেদখল দেওয়া হচ্ছে।

মেরুং ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদা বেগম লাকী জানান, জায়গাটি চেয়ারম্যানের শ্বশুর মৃত মানিক শেখের নামে বন্দোবস্তীকৃত। শ্বশুরের মৃত্যুর পর থেকে স্বামী মোঃ সেলিমের ভোগদখলে রয়েছে সে জায়গা। স্বামী সেলিম রাঙ্গুনিয়ায় কর্মরত। সেই সুযোগে সেলিম এন্ড ব্রাদার্স’র লোকজন সেখানে রাবার বাগান সৃজন করে জায়গাটি জবর দখল শুরু করে। সংবাদ পেয়ে সেখানে গিয়ে বাধা দেওয়া হয়। এতে সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের লোকজন ষড়যন্ত্র করে তাদের শ্রমিক দিয়ে চারা কেটে গাছ কাটার মিথ্যা মামলা সাজিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও জানান চেয়ারম্যান মাহমুদা বেগম লাকি।

অপরদিকে রসিক নগর এলাকায় সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের তত্বাবধায়ক মোঃ খলিলুর রহমান জানান,মেরুং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদা বেগম লাকী সম্প্রতি বাগানে ৩০/৩৫ জন লোক ও দেশীয় অস্ত্র সহ উপস্থিত হয়ে দাবী করেন এ জায়গা তার স্বামীর। এসময় তাদের উপর আক্রমণ সহ নানা ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আনুমানিক ৯শত রাবার গাছ কেটে ফেলেন।

শুক্রবার (৫ আগস্ট) সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পুরো পাহাড়টি ন্যাড়া। কর্তনকৃত গাছগুলো কিছু পড়ে আছে বাগানে, কিছু সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের অফিসের সামনে৷ সেখানেই কথা হয় সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের শ্রমিক নুরুল ইসলাম (৫০) ও রিজাব চাকমাসহ(৩৮) বেশ কয়েকজনের সাথে। তারা বলেন, “মেরুং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদা বেগম লাকী বেশ কয়েকজন লোকসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাগানো গাছগুলো কেটে ফেলতে করতে বলেন। এ সময় সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের কেয়ারটেকার মোঃ খলিলুর রহমান আমাদের নির্দেশ করলে আমরা নিজেরাই গাছগুলো কেটে ফেলি৷”

এদিকে বিরোধপূর্ন জায়গার পার্শ্ববর্তী মৃত আইন উদ্দীনের পুত্র মাহবুব আলম (৪৭) বলেন, “আমার পিতার নামীয় বন্দোবস্তিকৃত ৫ একর জমি সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের লোকজন বিভিন্ন সময় রাতের আধারে দখলের চেষ্টা করে। তারা আমাদের বাগানের অনেকগুলো সেগুন গাছ কেটে ফেলে। যা বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। এ বিষয়ে আদালতে মামলাও চলমান।”

এসব বিষয়ে স্থানীয় আবু সুফিয়ান (৩৫) বলেন, “সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের নামে এলাকার অনেক নিরীহ লোকের জায়গা দখল করে করা হয়েছে রাবার বাগান। বর্তমান চেয়াম্যানের জায়গা যেখানে জবর দখলের চেষ্টা করা হয় সেখানে অন্য সাধারন মানুষের জায়গা কতটুকু নিরাপদ।”

জানতে চাইলে, অভিযোগ অস্বীকার করে সেলিম এন্ড ব্রাদার্সের ম্যানেজার মতি রঞ্জন ত্রিপুরা জানান, প্রতিষ্ঠানের নামে ক্রয়কৃত ও দখলকৃত ভূমিতেই বাগান সৃজন করা হয়েছে। তাছাড়া মাহবুব আলম যে অভিযোগ করেছে সেটাও ভিত্তিহীন। কারণ, তার পিতার নামীয় রেকর্ডিয় ভূমিটি তার ভাই ওমর আলী ও ওমর আলীর ছেলে রিপন থেকে ক্রয় করা হয়েছে।”

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।