নবান্ন উৎসব আমাদের লোকজ সংস্কৃতির অংশ

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় উদযাপিত হলো নবান্ন উৎসব
খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় উদযাপিত হলো নবান্ন উৎসব
বাংলার আবহমান কৃষিজ সংস্কৃতিকে ধারণ করে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, ধান কাটা ও পিঠা উৎসবের মধ্য দিয়ে পার্বত্য খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় প্রথমবারের মতো নানা আয়োজনে উদযাপিত হলো নবান্ন উৎসব। “আজি নবান্ন উৎসবে নবীন গানে,আয়রে সবে আয়রে ছুটে প্রাণের টানে,গোলায় ভরেছি ধান কন্ঠে জেগেছে গান, মন মেতেছে আনন্দেরি গানে গানে” শ্লোগানে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদ থেকে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে মাটিরাঙ্গার চরপাড়া গিয়ে শেষ হয়।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা কৃষি বিভাগ যৌথভাবে এ নবান্ন উৎসবের আয়োজন করে। চরপাড়ার বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠে ধান কেটে নবান্ন উৎসবের শুভ সূচনা করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা কৃষি অফিসার মো: শাহ আলম মিয়ার সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ রায়হানুল হারুন, মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরনজয় ত্রিপুরা ও বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়াম্যান মো: আলী আকবর প্রমুখ।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান বলেন, নবান্ন উৎসব আমাদের অন্যতম প্রধান শষ্যোৎসব, আজ ঘরে ঘরে নতুনের মাতম চলছে। মানুষের মৌলিক অধিকারের প্রধান বিষয় অন্ন বা খাদ্যকে কেন্দ্র্র করে বহু আচারানুষ্ঠান সৃষ্টি হয়েছে যার মধ্যে নবান্ন উৎসব একটি অন্যতম অনুসঙ্গ।

বর্নাঢ্য শোভাযাত্রা, ধান কাটা ও পিঠা উৎসবে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো: আসাদুজ্জামান, গোমতি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো: ফারুক হোসেন লিটন, মাটিরাঙ্গা পৌরসভার কাউন্সিলর মো: শহীদুল ইসলাম সোহাগ, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো: আলী মিয়া, ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো: এমরান হোসেনসহ কৃষি বিভাগের বিভিন্ন পদস্থ কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সাংবাদিক ও কৃষক সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।