নাইক্ষংছড়িতে ইয়াবা দিয়ে দোকানদারকে ফাঁসানোর অভিযোগ

বান্দরবানের নাইক্ষংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে ৪৮ পিচ ইয়াবাসহ এক দোকানদারকে আটক করেছে পুলিশ। আর বিষয়টিকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে স্থানীয়রা। আটক ব্যক্তি বাইশারী ইউনিয়নের উত্তর বাইশারী এলাকার মোঃ শহিদুল্লাহ (২৮)। আজ বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) বিকালে তার দোকান থেকে তাকে আটক করা হয়।

বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (পরিদর্শক) এনামুল হক ভূইয়া জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে তার পানের দোকানে তল্লাশী চালিয়ে ক্যাশ ড্রয়ার থেকে ৪৮ পিচ ইয়াবা ও ইয়াবা সেবনের কয়েকটি সামগ্রী জব্দ করা হয়।

তিনি আরো জানান, তার দেওয়া তথ্য মতে ক্যাশ ড্রয়ার থেকে ইয়াবা গুলো পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় পাওয়া যায়, তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্যের সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা রুজুর পক্রিয়া চলছে।

স্থানীয় কৃষক সমবায় সমিতির সভাপতি আমিনুল হাকিম জানান, শহিদুল্লাহ ইয়াবা ব্যবসায়ী নয়। পরিকল্পিত ভাবে লম্বাবিল এলাকার বাসিন্দা হারুন নামের এক ব্যক্তি লোকজনের মাধ্যমে শহিদুল্লাহকে ফাঁসিয়েছে।

তিনি আরো জানান, গত ২৫ নভেম্বর (বুধবার) শহিদুল্লাহর আপন বোনের জামাই মঞ্জুর আলমকে বাইশারী বাজারে মোঃ হারুন এলোপাতাড়ী ভাবে মারধর করছিল। ঐ সময় বোনের জামাইকে মারধরের হাত থেকে ছাড়াতে গিয়ে শহিদুল্লাহও মোঃ হারুনকে মারধর করে। বিষয়টি মোঃ হারুন মোবাইল ফোনে আমাকে জানায় এবং তাকে দেখে নেওয়ার হুমকিও প্রদান করে।

স্থানীয় একাধিক লোকজনের দাবী, মোঃ শহিদুল্লাহকে চক্রান্ত করে ফাঁসিয়ে দিয়েছে মোঃ হারুন।

আটক শহিদুল্লাহর ভাই আব্দুর রশিদ জানান, বোনের জামাইকে ছাড়াতে গিয়ে হারুনের সাথে শহিদুল্লাহর ধস্তাধস্তি হয়। ঘটনার পর শহিদুল্লাহকে ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি অব্যাহত রাখে। যার ফলে হারুন এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোঃ হারুনুর রশিদ বলেন, তার সাথে বুধবার (২৫ নভেম্বর) বাইশারী বাজারে ঝগড়া হয়েছে, এটা ঠিক। বিষয়টি স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী, সাবেক ইউপি সদস্য রমজান আলম বৃহস্পতিবার সমাধান করে দেওয়ার কথা রয়েছে। তিনি আরো বলেন, যদি কেউ বলে থাকে তাকে ফাঁসিয়েছি, তাহলে এটা মিথ্যা এবং ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছু নয়।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।