নাইক্ষ্যংছড়িতে জামায়াত – জেএসএস বন্ধুত্ব !

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে বর্তমান সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে জামায়াতের সঙ্গে বন্ধুত্বের বন্ধন মজবুত করছে বলে অভিযোগ উঠেছে জেএসএস‘র বিরুদ্ধে। Naikkongchori
নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের কয়েকজন নেতা জানিয়েছেন-মিয়ানমারের বিদ্রোহী সংগঠনের সঙ্গে গভীর সংখ্যতা রয়েছে জেএসএস নেতাদের। তাঁরা উপজেলাকে উত্তপ্ত করতে নানাভাবে ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে বাইশারীতে ঘটে যাওয়া বৌদ্ধ ভিক্ষু ও আওয়ামীলীগ নেতা খুনের ঘটনায়ও জেএসএস‘র ইন্ধন রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ঐক্যমং মার্মা বলেন-জামায়াতের পাশাপাশি জেএসএস সংগঠনটি এখন নাইক্ষ্যংছড়িতে বিষফোড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে, তারা আবার বিভিন্ন অবৈধ কর্মকান্ডেও জড়িত। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নজর দিতে হবে।
উপজেলা বিএনপির এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, নাইক্ষ্যংছড়ির পাহাড়ি এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করতে জেএসএস নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করছে। বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠন ছাড়াও মিয়ানমারের বিদ্রোহী গ্রæপগুলোর কাছে থেকে তারা অস্ত্র সরবরাহ করছে বলেও গুঞ্জন শুনা যাচ্ছে।
সুশীল সমাজের নেতারা বলছেন-হেডম্যান মংনু অং মারমা, নীলা মং মরমা ও সুমেন তংঞ্চ্যার নেতৃত্বে দীর্ঘদিন ধরে জেএসএস নেতাকর্মীরা আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে জামায়াতের সাথে বন্ধন গড়ে তুলে নানা অবৈধ ও সরকার বিরোধী কর্মকান্ড চালাচ্ছেন। জেএসএসকে দমন করতে না পারলে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় যেকোন সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।
এ ব্যাপারে নাইক্ষ্যংছড়ি জেএসএস‘র সাধারণ সম্পাদক হেডম্যান মংনু অং মারমার সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
এই ব্যাপারে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএসএম শাহেদুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমরাও শুনেছি, এ বিষয়ে গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করছে। তিনি আরো বলেন, প্রতিবেদন হাতে এলেই অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন
Loading...