নাইক্ষ্যংছড়িতে পাহাড় ধসে সড়ক যোগাযোগ ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন

বন্যার পানিতে বন্দি নাইক্ষ্যংছড়ি
লাগাতার বৃষ্টিতে পাহাড় ধসে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এবং দুইদিন ধরে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এছাড়া পাহাড় ধ্বসে আহত হয়েছেন দৌছড়ি ইউনিয়নের এক ব্যক্তি। আহত ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত আলি আহাম্মদের ছেলে নুর আহাম্মদ। বর্তমানে আহত নুর আহমদ কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম সরওয়ার কামাল।
জানা যায়, টানা বর্ষনে নাইক্ষ্যংছড়ি-রামু সড়ক, নাইক্ষ্যংছড়ি-গর্জনীয়া-বাইশারী সড়ক ও দৌছড়ি সড়কটি বিচ্ছিন্ন সহ দুই উপজেলার ১০ গ্রামের মানুষ রয়েছে পানি বন্দীতে।
বাইশারী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আলম জানান, লাগাতার বৃষ্টিতে বাড়ীঘর বিধ্বস্থ ও হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও পাহাড় ধসের আশংকা রয়েছে। ইতিমধ্যে এলাকার লোকজনদের পাহাড়ের পাদদেশ থেকে সরে যেতে আহবান জানান। তবে রাবার বাগানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
সরজমিনে জানা যায়, নাইক্ষ্যংছড়ির পার্শ্ববর্তী রামু উপজেলার ঐতিহাসিক শাহসূজা সড়কের কচ্ছপিয়া-গর্জনিয়া সংযোগ অংশে বাকঁখালী নদীর উপর নির্মিত ৩ কোটি ব্রীজ টি একপাশের অংশ নদীতে বিলীন হতে শুরু করায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে এলাকার লাখো মানুষ। বছরের প্রথম পাহাড়ি ঢলের প্রবল স্রোতের তোড়ে ব্রীজটি ভেঙ্গে গিয়ে নদীতে বিলীন হলে ওপারের অন্তত ২ শত গ্রামের দেড় লাখ মানুষের কপালে চরম দূর্দশা নেমে আসবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।