নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোম কোয়ারেন্টিনে

বান্দরবান পার্বত্য জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় একদিকে চলছে লকডাউন, অন্যদিকে ক্ষোদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার কারনে উপজেলা প্রশাসনের কার্যক্রমে ধীরগতি দেখা দিয়েছে।

আজ বুধবার (২৫ মার্চ) বিকেল সাড়ে ৪ টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবু জাফর মো: ছলিম বিষটি নিশ্চিত করে তিনি বলেন, গত ২৪ মার্চ মঙ্গলবার কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মুসলিমা খাতুন নামে যে মহিলার কোভিট-১৯ করোনা ভাইরাস সনাক্তকরণ করা হয়, তার চিকিৎসার তত্বাবধানে ছিলেন নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া আফরিন কচির স্বামী ডা: মো: ইউনুচ।

আরো জানা গেছে,গত মঙ্গলবার এই মহিলা সংক্রমণ বহনকারী রিপোর্ট পাওয়ার পর ডা: মো: ইউনুছ কক্সবাজার আইসোলেশন ওয়ার্ডে আছেন। আর এদিকে সর্তকতা অবলম্বন ও কোভিট-১৯ সংক্রমণ প্রতিরোধে সাদিয়া আফরিন কচি হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন তবে তিনি এই পর্যন্ত সুস্থ আছেন।

এদিকে, নির্বাহী কর্মকর্তা হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার ফলে স্থবির হয়ে পড়েছে প্রশাসনিক কার্যক্রম।

প্রশাসন সূত্র জানান,পরবর্তী প্রশাসনিক দায়িত্বভার কে পালন করছেন তা এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তারা। কারন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বিস্তার রোধ করতে নাইক্ষ্যংছড়িতে লক ডাউন জারি করে গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নির্বাহী কর্মকর্তা হোম কোয়ারেন্টিনে চলে যান।

নাইক্ষ্যংছড়ি থানা অফিসার ইনর্চাজ আনোয়ার হোসেন জানান, গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া আফরিন কচির স্বাক্ষরিত এক গণ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নাইক্ষ্যংছড়ি লক ডাউন ঘোষণার মেসেজটি পাওয়ার সাথে সাথে লক ডাউন করা হয়।
পরে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টি,এস আবু জাফর এর কাছে জানতে পরি ইউএনও ম্যাডাম কোয়ারেন্টিনে আছেন।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।