নিজেদের সুরক্ষায় লক ডাউনে খাগড়াছড়ির দুই গ্রাম

খাগড়াছড়ি সদরের দুইটি গ্রাম স্থানীয় যুবকদের উদ্যোগে লক-ডাউন করে রাখা হয়েছে। গত শনিবার থেকে পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের খবংপুড়িয়া ও ৩নং ওয়ার্ডের শব্দমিয়া পাড়া লক-ডাউনের আওতায় রয়েছে। বহিরাগতদের প্রবেশ ঠেকাতে এবং নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে এ কার্যক্রম ইতোমধ্যে প্রশংসা খুড়িয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও স্থানীয়দের কাছে।

সরজমিনে কাশেম স’মিল এলাকা দিয়ে খবংপুড়িয়া গ্রামের প্রবেশমুখ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, গ্রামের প্রবেশমুখে বাঁশ দিয়ে অস্থায়ীভাবে তৈরী করা হয়েছে ব্যারিকেড। ব্যারিকেডের বাঁশের উপর বিজ্ঞপ্তিতে লেখা “বৃহত্তর খবংপুড়িয়া সচেতন যুব সমাজের উদ্যোগে অনির্দিষ্টকালের জন্য বহিরাগতদের প্রবেশ নিষেধ”।

প্রশাসন,গণমাধ্যম ও মেডিকেল টিম এর আওতামুক্ত থাকবে। সচেতনতামূলক এ কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষে পয়েন্টে পয়েন্টে বসেছে পাহারা। পালাক্রমে গ্রামের যুবকরা দায়িত্ব পালন করছে এ কাজে। এলাকার বাইরের কেউ প্রবেশ করতে চাইলে তাদের বুঝিয়ে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। আর এলাকার যারা প্রয়োজনীয় কাজে বাজার কিংবা অন্যত্র থেকে ফিরছেন তাদের প্রবেশ করানো পর বাড়ি গিয়ে জীবাণুমুক্ত হয়ে নিতে বলা হচ্ছে। আর আগামীতে প্রবেশমুখ গুলোতে জীবাণুনাশক ছিটানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান কয়েকজন।

স্বর্ণিভর এলাকার বাসিন্দা অমিও চাকমা জানান, নিজেদের সুরক্ষায় কয়েকদিন যদি বের না হয়ে থাকতে হয় তাহলে সেটি মেনে চলতে কোন ক্ষতি নেই। আমাদের এলাকার যুব সমাজ যে উদ্যোগ নিয়েছে সেটি প্রতিবেশী ও স্থানীয়দের জন্য ইতিবাচক হবে।

খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র রফিকুল আলম বলেন, খাগড়াছড়ি পৌরসভার দুইটি গ্রামের হাজারেরও বেশী পরিবার নিজেদের সুরক্ষায় এলাকায় বহিরাগতদের প্রবেশ নিষেধ করেছে। এটি একটি ইতিবাচক উদ্যোগ। পৌরসভার পক্ষ থেকে এলাকায় এলাকায় জীবাণুনাশক ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান চলছে। হতদরিদ্রদের পাশে দাঁড়াতে নানা কার্যক্রম নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।