পার্বত্যাঞ্চলের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের বিকল্প নেই : জুয়েল চাকমা

গুইমারা উপজেলায় সনাতন ছাত্র-যুব পরিষদের প্রথম সম্মেলনে প্রধান অতিথি খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জুয়েল চাকমা
খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জুয়েল চাকমা বলেছেন, দেশ স্বাধীনের পর থেকে বেশিরভাগ সময় যাঁরা দেশের শাসন ক্ষমতায় ছিলেন, তাঁরা ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের মেরুদন্ড ভেঙ্গে দেয়ার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যা যখনি ক্ষমতায় এসেছেন তখনি সংখ্যালঘুদের সার্বিক উন্নয়নে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলেন। আজ দেশের প্রতিটি সেক্টরে সঙখ্যালঘুদের যে অর্জন এবং অবস্থান, তা একমাত্র জননেত্রী শেখ হাসিনার সদিচ্ছার প্রতিফলন।
তিনি বলেন, তিন পার্বত্য জেলায় গত ১০ বছরে যে উন্নয়ন হয়েছে, তা নজিরবিহীন। পার্বত্যাঞ্চলের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের কোনই বিকল্প নেই। তাই আগামী নির্বাচনে সর্বোচ্চ ত্যাগের বিনিময়ে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তিকে জয়ী করে আনার আহবান জানান।
জেলার নবগঠিত গুইমারা উপজেলায় সনাতন ছাত্র-যুব পরিষদের প্রথম সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আজ
শুক্রবার বিকেলে স্থানীয় লোকনাথ সেবাশ্রম প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত এই সভায়, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।
সংগঠনের আহবায়ক নন্দন বণিক এর সভাপতিত্বে এবং সাগর চৌধুরী’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সা: সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমা, সনাতন সমাজ কল্যান পরিষদের কেন্দ্রীয় সা: সম্পাদক সজল বরণ সেন, সনাতন ছাত্র-যুব পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি স্বপন ভট্টাচার্য্য এবং সা: সম্পাদক শেখর সেন।
এতে প্রধান অতিথির তরুণ রাজনীতিক জুয়েল চাকমা আরো বলেন, খাগড়াছড়িতে শিক্ষা, তথ্যপ্রযুক্তি, বিদ্যুৎ, সড়ক যোগাযোগ, কৃষি, মৎস্য এবং প্রাণি সম্পদ খাতে বিপুল উন্নয়ন হয়েছে। সরকারি বরাদ্দে সব শ্রেণীর মানুষের জীবনমান পাল্টে গেছে। এই অব্যাহত উন্নয়ন ধরে রাখতে হলে বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
সম্মেলন শেষে জিকু বণিককে সভাপতি, সাগর চৌধুরীকে সা: সম্পাদক এবং রুপশ ভট্টাচার্য্যকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ২১ সদস্য বিশিষ্ঠ গুইমারা উপজেলা কমিটি ঘোষণা করা হয়।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।