পার্বত্য চুক্তি সম্পাদনের ২ যুগেও খুনোখুনি আর চাঁদাবাজি কারো কাম্য নয় : কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

শরণার্থী পুর্নবাসন টাস্কফোর্স চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি সম্পাদনের দুই যুগে এসেও পাহাড়ে চলমান হানাহানি-খুনোখুনি এবং চাঁদাবাজির ঘটনা অব্যাহত থাকায় উস্মা প্রকাশ করেছেন।

সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির এই সদস্য অভিযোগ করেন, দ্বিপাক্ষিক যে কোন চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য উভয় পক্ষে সম আন্তরিকতা ও উদ্যোগ প্রয়োজন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামীলীগ সরকার দীর্ঘ একুশ বছর পর ক্ষমতায় আসার এক বছরের মাথায় এই চুক্তি সম্পাদন করেছেন। কারণ তিনিই একমাত্র সরকার প্রধান যিনি পাহাড়ের সংঘাতের রাজনৈতিক সমাধানসূত্র খুঁজে পেয়েছিলেন। তাই এই চুক্তি আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কেউ বাস্তবায়ন করবে না।

তিনি আজ বৃহস্পতিবার (২ডিসেম্বর) দুপুরে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি’র দুই যুগ পূর্তি উপলক্ষে পার্বত্য জেলা পরিষদ আয়োজিত দিনব্যাপি কর্মসূচির আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধার মধ্য দিয়ে সূচিত আলোচনা সভাস্থলে একটি কেক কাটা হয়। এর আগে বাইরে উন্মক্ত মঞ্চে বাঙালি, চাকমা, মারমা ও ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের নারীরা স্ব-স্ব জাতির পোষাকে আকর্ষণীয় ডিসপ্লে­ প্রদর্শন করে।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মংসুই প্রু চৌধুরী অপু। এতে বিশেষ অতিথির বক্ত্য রাখেন, সেনাবাহিনীর খাগড়াছড়ি রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ আলী রেজা, সাবেক সাংসদ যতীন্দ্র লাল ত্রিপুরা, পার্বত্য জেলা পরিষদ’র মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা বশিরুল হক ভূঁঞা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কে এম ইয়াসির আরাফাত এবং সদর উপজেলা পলিষদ চেয়ারম্যান মোঃ শানে আলম প্রমুখ।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে ডিজিএফআই’র ডেট কমান্ডার কর্ণেল খুরশীদ আলম, রিজিয়নের জিএসও টু মেজর জাহিদ হাসানসহ জেলা পরিষদ সদস্য, বিভাগীয় প্রধান, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে পার্বত্য চুক্তি’র দুই যুগপূর্তিতে খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়ন এবং গুইমারা সেনা রিজিয়ন পৃথকভাবে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করে। কর্মসূচি’র মধ্যে রয়েছে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, বিভিন্ন খেলাধুলাসহ খেলার সরঞ্জাম বিতরণ, বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও হত দরিদ্র জনসাধারণের মাঝে ভ্যান গাড়ি বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অন্যতম।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।