পাহাড়ে হাতছানি দিয়ে ডাকছে রক্তরাঙা কৃষ্ণচূড়া

NewsDetails_01

তীব্র তাপপ্রবাহে পাহাড়ের জনজীবন যখন ওষ্ঠাগত, ঠিক তখনী একটি কৃষ্ণচূড়ার গাছের ছায়ায় বসে পথিক একমুঠো সুখ অনুভব করে। একইভাবে তার অপরুপ সৌন্দর্য তাকে বিমোহিত করে। গাছটির নিছে বসে দূর আকাশে তাকিয়ে মৃদু বাতাসে কবিতা লিখতে পারার দক্ষতা আপনার মনে নতুন স্বপ্ন জাগিয়ে তুলতে পারে। বলছিলাম খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় বিভিন্ন স্থানে ফুটে থাকা কৃষ্ণচূড়া গাছের ফুলের সৌন্দর্যের কথা।

গ্রীষ্মের খরতাপে রুক্ষতা ছাপিয়ে এ কৃষ্ণচূড়ার ফুল নিজের সৌন্দর্য তুলে ধরছে। গাছের ডালপালা জুড়ে শুধুই কৃষ্ণচূড়া ফুলের সমারোহ। এই ফুলের অপরুপ দৃশ্য যে কারও চোখে ও মনে এনে দিতে পারে শিল্পের দ্যোতনা।

মাটিরাঙ্গার বিভিন্ন জনপথ ও বসত বাড়ির আঙ্গিনায় রক্তরাঙ্গা ফুল সমৃদ্ধ ছড়িয়ে পড়েছে কৃষ্ণচূড়ার জৌলুস। থোকায় থোকায় ফুল ফুটেছে গাছে। সবুজের বুকে একখন্ড লালের রাজত্ব। দূর থেকে দেখে মনে হয় ময়ূর প্রকৃতির মাঝে রাঙা পেখম মেলে ধরেছে। আর এসব কৃষ্ণচূড়া ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করছেন ফুলপ্রিয় পথিক। কেউ তুলছেন ছবি কেউবা সেলফি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছেন।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের পুরাতন ভবনের উপরে ও সম্মুখে, সরকারি ডিগ্রী কলেজের সম্মুখভাগে, পৌরসভার প্রবেশ পথ, চৌরাস্তার ধারে সহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সৌরভ ও সৌন্দর্য ছড়াচ্ছে দৃষ্টিনন্দন এই ফুল।

NewsDetails_03

এই গাছ চমৎকার পাতা পল্পব এবং আগুনলাল কৃষ্ণচূড়া-ফুলের জন্য প্রসিদ্ধ। কৃষ্ণচূড়া গাছের লাল-কমলা-হলুদ ফুল এবং উজ্জ্বল সবুজ পাতা একে অন্যরকম দৃষ্টিনন্দন করে তোলে। কৃষ্ণচূড়ার বৈজ্ঞানিক নাম ডেলোনিক্স রেজিয়া। এটি সিসালপিনিয়েসি গোত্রের অন্তর্গত একটি উদ্ভিদ। কৃষ্ণচূড়া লাল, হলুদ ও সাদা রঙেরও হয়ে থাকে। তবে আমাদের দেশে লাল ও হলুদ রঙের ফুল দেখা গেলেও সাদা রঙের কৃষ্ণচূড়া দেখাই যায় না।

মাটিরাঙ্গা ডিগ্রী কলেজের স্নাতক ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী আসমাউল হোসনা জানান, কলেজে যেতেই চোখে পড়ে কৃষ্ণচূড়া গাছটি। বিশ্রামের ছলে খানিকটা সময় দাঁড়িয়ে তার সৌন্দর্য অনুভব করি। লাল সবুজের মিলনে রক্তিম আভা ছড়ানো কৃষ্ণচূড়া ফুল যেন নিজেদের জীবনে ছড়িয়ে দেয় মুগ্ধতা।

উপজেলায় সেবা নিতে আসা রহিমা বেগম জানান, এক সময় এরকম গাছ বহুত আছিল, মাইনসে সব গাছ কাইট্টা পালাইছে এখন আর আগের মতো কৃষ্ণচূড়া গাছ দেহা যায় না।

মাটিরাঙ্গা রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আতাউর রহমান লস্কর জানান, কৃষ্ণচূড়া মূলত ৩ জাতের হয়। বেশীর ভাগ লোক এর নাম কৃষ্ণচূড়া হিসেবে জানলেও এর আরেকটি নাম রয়েছে গুলমোহন। কৃষ্ণচূড়া ফুল থোকায় থোকায় গাছের ডালে পর্যায়ক্রমে ফুল ফুঁটতে থাকে। সৌন্দর্য বর্ধণে পরিবেশবান্ধব কৃষ্ণচূড়া গাছের পাশাপাশি অন্যান্য গাছ লাগানোর পরামর্শ দেন তিনি।

আরও পড়ুন