পাহাড়ে চিত্র শিল্প বিকাশে সরকারি পৃষ্টপোষকতা প্রয়োজন

পর্দা নামলো আর্ট ক্যাম্পের

একজন শিল্পী রঙ তুলি দিয়ে মনের ভাবনাকে ক্যানভাসের মাধ্যমে যে ভাবে ফুটিয়ে তুলেন সে ভাবে সমাজ পরিবর্তনেও রাখতে পারেন অবদান। পাহাড়ের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সৃজনশীল প্ল্যাটফর্ম তৈরীতে চিত্রকর্ম একটি মাধ্যম হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের প্রভাষক লুবাইসু চৌধুরী।

গত রোববার (২৫ অক্টোবর) সন্ধ্যায় খাগড়াছড়ি সদরের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটের হলরুমে সবুজ পাহাড়ের বাঁকে ৫ দিন ব্যাপী আর্ট ক্যাম্পের সমাপনী দিনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
লুবাইসু চৌধুরী আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের চারিদিকে অপরূপ সৌন্দর্য ছড়িয়ে আছে। এখানকার অনেক তরুণ-তরুণীর মাঝে সৃজনশীলতা সুপ্ত অবস্থায় রয়েছে। প্রাতিষ্ঠানিক পরিচর্যা ও সহযোগীতার মাধ্যমে এ প্রতিভা রেব করে আনা সম্ভব। সরকারি ভাবে পৃষ্টপোষকতা পেলে পাহাড়ে চিত্র শিল্প বিকশিত হবে।

খাগড়াছড়ির ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক জীতেন চাক্মার সভাপতিত্বে আর্ট ক্যাম্পের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন হিল আর্টিস্ট গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক জয়দেব রোয়াজা।

প্রসঙ্গত, তিন পার্বত্য চট্টগ্রামের ২০ জন চিত্র শিল্পীর অংশগ্রহণে গত ২১ অক্টোবর থেকে খাগড়াছড়িতে শুরু হয় ৫ দিনে আর্ট ক্যাম্পের। যার সার্বিক সহযোগিতায় ছিল খাগড়াছড়ির ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।