প্রত্যন্ত এলাকায় প্রকল্প বাস্তবায়ন করার জন্য এনজিও গুলোকে অনুরোধ জানালেন বৃষ কেতু চাকমা

রাঙামাটিতে লিডারশীপ টু এনসিউর এডইকুয়েট নিউট্রিশন (লীন) প্রকল্পের বাজেট বিষয়ক কর্মশালায় প্রত্যন্ত এলাকায় প্রকল্প বাস্তবায়ন করার জন্য এনজিও গুলোকে অনুরোধ করেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা।

আজ সোমবার (২৪আগস্ট) রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার পুষ্টি কার্যক্রমে বাজেট বিশ্লেষণ বিষয়ক এ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা।

লীন প্রকল্পের জেলা ট্রেইনিং অফিসার ডায়না চাকমার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন লীন প্রকল্পের জেলা কর্মকর্তা রাজীব দাস গুপ্ত। প্রকল্প বিষয়ে ব্রীফ করেন জেলা টেকনিক্যাল অফিসার মো: আজিজুল্লা।

কর্মশালার উদ্বোধনের সময় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে বিশেষ করে প্রত্যন্ত এলাকায় মা ও শিশুদের পুষ্টির ঘাটতি রয়েছে। এ বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে সরকারের পাশাপাশি এনজিওগুলোর ভূমিকা অপরিহার্য। অপুষ্টির কারণে রাঙ্গামাটি জেলার প্রত্যন্ত এলাকায় প্রতি বছর বিভিন্ন ধরনের রোগের (বাঘাইছড়ি উপজেলায় সাজেক ইউনিয়নে হাম, কাউখালী উপজেলায় অপরিচিত রোগ) উপসর্গ দেখা দেয়। মেডিক্যাল টিম এ রোগগুলি চিহ্নিত করার পর জানতে পারে যে, অসচেতনতা এবং পুষ্টির অভাবে এ সমস্ত রোগের প্রাদূর্ভাব দেখা দেয়। তাই তিনি এনজিওগুলোকে শহর কেন্দ্রিক প্রকল্প হাতে না নিয়ে দরিদ্র জনগোষ্ঠির জন্য প্রত্যন্ত এলাকায় প্রকল্প বাস্তবায়ন করার জন্য অনুরোধ জানান।

কর্মশালায় আরো উপস্থিত ছিলেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পবন কুমার চাকমা, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ নীতিশ চাকমা, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা শ্রীবাস চন্দ্র চন্দ, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোঃ শহিদুল ইসলাম, জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক রুপনা চাকমা, রাণী দয়াময়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রণতোষ মল্লিকসহ বিভিন্ন্ মৌজার হেডম্যান ও কার্বারীগণ।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।