বাঙ্গালহালীয়া কলেজ জাতীয়করণ বহালের দাবিতে অবরোধ চলছে

বাঙ্গালহালীয়া কলেজ
বাঙ্গালহালীয়া কলেজ
রাঙ্গামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলার বাঙ্গালহালীয়া কলেজটি জাতীয় করনের আদেশ পূর্নবহাল রাখার দাবিতে শনিবার থেকে ৭২ ঘন্টার অবরোধ পালন করছে কলেজ আন্দোলন পরিচালনা কমিটি।
সুত্রে জানা যায়, গত ১৫ দিন ধরে বাঙ্গালহালিয়া কলেজটি জাতীকরণের আদেশ পূনর্বহালের দাবিতে বাঙ্গালহালিয়া এলাকায় দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন থেকে শুরু করে নিয়মিত অবরোধ কর্মসূচী পালন করছে কলেজ আন্দোলন কমিটি। আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় গত ২রা ডিসেম্বর কলেজ কক্ষে এক আলোচনা সভায় আন্দোলন কমিটির আহ্বায়ক ও ইউপি চেয়ারম্যান ঞোমং মারমা ৭২ ঘন্টার অবরোধ কর্মসূচী ঘোষনা করেন। এসময় বক্তব্য রাখেন আন্দোলন কমিটির সচিব বিশ্বনাথ চৌধুরী, পুলক বড়–য়া, থুইলা মারমা, উসাথোয়াই মারমা, ইউপি সদস্য জাহাঙ্গাীর আলম, নজরুল ইসলাম, সুইসা প্রু মারমা, মাসুম সর্দ্দার, শামিম আহম্মদ রুবেল, কালামং মারমা, আলমঙ্গীর হোসেন প্রমূখ।
বক্তারা বলেন, ১৯৯৬ সনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে বান্দরবান সফর শেষে ফেরার পথে বাঙ্গালহালীয়া বাজারে পথসভায় এই উপজেলাবাসীর দাবি ছিল বাঙ্গালহালীয়া কলেজটি জাতীয়করণের। তখন প্রধানমন্ত্রী ওয়াদা দিয়েছিলেন আওয়ামীলীগ সরকার গঠন করতে পারলে অবশ্যই কলেজটি জাতীয় করন করা হবে। সারাদেশের ১৯৯টি কলেজ জাতীয়করনের আওতায় রাজস্থলী উপজেলার বাঙ্গালহালীয়া কলেজের নামটিও অন্তর্ভূক্ত হয়েছিল কিন্তু কেন আবার কলেজটিকে তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে ? কলেজটিকে জাতীয়করণ পুন: বহাল না করা পর্যন্ত আন্দোলন অব্যহত থাকবে বলে বক্তারা বলেন।
এদিকে বাঙ্গালহালিয়া এলাকায় অবরোধের কারণে রাজস্থলী উপজেলা সদরসহ রাঙ্গামাটি-বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় দৈনন্দিন সড়কের পথচারীরা ভোগান্তি স্বীকারসহ জনদূর্ভোগ দিন দিন বাড়ছে।
চন্দ্রঘোনা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জহিরুল আনোয়ার বলেন, বাঙ্গালহালিয়া এলাকায় কলেজ জাতীয়করণ পুন:বহাল আন্দোলন কমিটি কর্তৃক অবরোধ কর্মসূচী শান্তিপূর্ণ ভাবে পালিত হয়েছে, সকাল থেকে পুলিশ টহল জোরদার অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।