বান্দরবানের থানচিতে পর্যটক ভ্রমনে নিষেধাজ্ঞা নেই

4333বান্দরবান পার্বত্য জেলার থানচি উপজেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটক যাতায়তের উপর কোন ধরণের নিষেধাজ্ঞা নেই বলে জানিয়েছে থানচি উপজেলা প্রশাসন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দেশের কয়েকটি অনলাইন পোর্টাল নিরাপত্তা জনিত কারনে থানচিতে পর্যটক যাতায়তে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে বলে সংবাদ পরিবেশন করলে পর্যটকদের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়ে। নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়টি ভিত্তিহীন ও অসত্য বলে নিশ্চিতকরেন থানচির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম। থানচির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম পাহাড়বার্তাকে বলেন,

থানচিতে পর্যটক ভ্রমনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলে আইনশৃঙ্খলা মিটিং-এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, এই ধরণের কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তিনি আরো বলেন, যেসব অনলাইন পোর্টাল নিষেধাজ্ঞা জারির সংবাদ প্রকাশ করেছে, তা ভিত্তিহীন ও সত্য নয়।

সারি সারি সবুজ পাহাড়, আর পাহাড়ের বুক চিরে বয়ে চলা সাঙ্গু নদী। সাঙ্গুর বুকে থরে থরে সাজানো আছে প্রাকৃতিকগত ভাবেই বড় বড় পাথর। এসবের টানেই দূর্গম পথ পাড়ি দিয়ে জেলার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের থানচিতে ভ্রমনে যায় দেশের বিভিন্ন প্রান্তের পর্যটকরা। থানচির নাফাখুম, আমিয়াখুম, বেলাখুম, বড় পাথর, রেমাক্রী, আন্ধারমানিক, তিন্দু ও বড় মদক এলাকায় প্রতিবছর হাজার হাজার পর্যটক ভ্রমন করে থাকে। আরো জানা গেছে, থানচির এসব পর্যটন এলাকায় ভ্রমনে যাওয়ার জন্য প্রত্যেক পর্যটককে স্থানীয় থানায় ও বিজিবি ক্যাম্পে যৌথ নিবন্ধন করে গন্তব্যে যেতে হয়। নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভালো থাকায় পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটক যাতায়তের উপর কোন ধরণের নিষেধাজ্ঞা না থাকায় মঙ্গলবার সকাল থেকে থানায় নিবন্ধন করে পর্যটকরা ভ্রমনে যায়। থানচি থানার উপ-পরিদর্শক আমিনুর রহমান পাহাড়বার্তাকে জানায়,

নিষেধাজ্ঞা না থাকায় গত এক সপ্তাহের ন্যায় মঙ্গলবারও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা পর্যটকরা নিবন্ধন করে রেমাক্রি,তিন্দু ও নাফাকুমসহ বিভিন্ন স্পটে ভ্রমনে গেছে।

33333স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে,থানচির পর্যটন স্পটগুলোতে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকার ফলে নৌ যোগাযোগের ওপর নির্ভর করতে হয় স্থানীয় লোকজন ও পর্যটকদের। বর্ষা মৌসুমে সাঙ্গু নদীতে তীব্র স্রোত ও স্পট গুলো পাথুরে এবং পিচ্ছিল হওয়ার কারণে স্পটগুলো পর্যটকদের জন্য বিপদজনক হওয়ার কারনে প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম শুরুর দিকে ১ জুলাই থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পর্যটক ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলেও চলতি বছর থানচিতে পর্যটক ভ্রমনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়নি।
থানচি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য হ্লা চিং মার্মা পাহাড়বার্তাকে বলেন, থানচিতে পর্যটক ভ্রমনে প্রশাসনিক নিষেধাজ্ঞা জারি হলে আমি জানতাম, এই ধরণের কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।