বান্দরবানে আওয়ামী লীগ নেতা হত্যা : জেএসএস এর কেএসমং ও ক্যাবা মং মার্মাসহ ৪ জন আটক

জেএসএসএর কেএসমং ও ক্যাবা মং মার্মা
বান্দরবান সদর উপজেলার উজি হেডম্যান পাড়া থেকে অপহৃত পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সাবেক পৌর কমিশনার চথোয়াই মং মার্মাকে হত্যার ঘটনায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জন সংহতি সমিতির (জেএসএস) এর কেন্দ্রিয় সহ সাধারণ সম্পাদক কেএসমং মার্মা ও জেএসএস এর জেলা সাধারণ সম্পাদক, রোয়াংছড়ি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ক্যাবা মং মার্মা,মং হ্লা প্রু মার্মা হেডম্যান ও থৈ হ্লা মার্মাসহ ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আজ শনিবার বিকালে জেলা শহরসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে পুলিশ। বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম পাহাড়বার্তাকে এই চারজনকে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করেন।
এদিকে পৌর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও সাবেক পৌর কমিশনার চথোয়াই মং মার্মাকে হত্যার প্রতিবাদে কাল রোববার অর্ধ দিবস হরতালের ডাক দিয়েছে জেলা আওয়ামীলীগ।
জেলা আওয়ামীলীগ সূত্রে জানা গেছে, আজ বিকালে জেলা আওয়ামীলীগের এক জরুরী বৈঠকে হরতালের মতো কঠিন কর্মসূচীর সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। বান্দরবান-চট্টগ্রাম,বান্দরবান -রাঙামাটি এবং অভ্যন্তরিন সড়ক পথে সকাল থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত এই হরতালে এ্যাম্বুল্যান্স, সংবাদপত্রের গাড়ি, ফায়ারসার্ভিস ছাড়া সব ধরণের যান চলাচল বন্ধ থাকবে।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আজ শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে সদর উপজেলার উজি হেডম্যান পাড়ার বাগান বাড়ির এক কিলোমিটার দূরের পাহাড়ে স্থানীয়রা এই আওয়ামীলীগ নেতার লাশ দেখতে পায়,পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে বান্দরবান সদর হাসপাতাল মর্গে নিয়ে আসে।
গত বুধবার রাত নয়টার দিকে সদর উপজেলার উজি হেডম্যান পাড়ার বাগান বাড়ি থেকে এই আওয়ামী লীগ নেতাকে অপহরণ করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। এই ঘটনার পর তাকে উদ্ধারের জন্য অভিযানে নামে যৌথবাহিনী। এঘটনার জন্য আওয়ামী লীগ জেএসএসকে দায়ী করে,চথোয়াই মং মার্মাকে উদ্ধারের দাবীতে বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগ ৭টি উপজেলায় বিক্ষোভ মিছিল,মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে, সর্বশেষ কাল রোববার অর্ধ দিবস হরতালের ডাক দেয়।
প্রসঙ্গত, গত ৭ মে সন্ত্রাসীরা জনসংহতি সমিতির কর্মী বিনয় তঞ্চঙ্গ্যাকে গুলি করে হত্যা করে। একই দিন অপহরণ করা হয় পুরাধন তংচঙ্গ্যা নামের অপর কর্মীকে,তার সন্ধান মেলেনি। গত ৯ মে সন্ত্রাসীরা জনসংহতি সমিতির সমর্থক জয়মনি তঞ্চঙ্গ্যাকে গুলি করে হত্যা করে। ১৯ মে বান্দরবানের রাজবিলায় আওয়ামী লীগের সর্মথক ক্য চিং থোয়াই মারমাকে অপহরণের পর গুলি করে হত্যা করা হয়।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।