বান্দরবানে আ’লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ২ বহিস্কৃত নেতাসহ ৪ জন

আ’লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহকারী বান্দরবানের বর্তমান ও সাবেক নেতা
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বান্দরবান ৩০০ নং আসনে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত ২ নেতাসহ মোট ৪জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তারা হলেন, পাঁচ বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য বীর বাহাদুর উশৈসিং, জেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সভাপতি প্রসন্ন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা, জেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক কাজি মুজিবুর রহমান এবং লামা উপজেলা আওয়ামী লীগের সমাজ কল্যান বিষয়ক সম্পাদক থুইনু মং মারমা।
মনোনয়ন সংগ্রহকারীদের মধ্যে থুইনু মং মারমাকে গত ১৪ সেপ্টেম্বর ৩৬পিস ইয়াবাসহ জেলার লামা উপজেলার লাইন ঝিড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। গত শুক্রবার বীর বাহাদুর এর পক্ষ্যে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করলেও আজ শনিবার পর্যন্ত এসব প্রার্থীরা ঢাকার আওয়ামী লীগ কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। ক্লিন ইমেজ ও জেলায় ব্যাপক উন্নয়নের কারনে দলীয় জরিপে এগিয়ে আছে কেন্দ্রিয় আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বীর বাহাদুর এমপি। ফলে বীর বাহাদুর ৬ষ্ট বারের মতো দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন তা অনেকটা নিশ্চিত বলে মনে করছে বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুরের পক্ষে তার একান্ত সচিব, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সাদেক হোসেন চৌধুরী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। জেলা আওয়ামী লীগের বিরোধের কারনে এবারই প্রথম বেশি সংখ্যক নেতা সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেন। গত সংসদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রসন্ন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে বীর বাহাদুরের বিপক্ষে নির্বাচন করে ৩৩ হাজার ভোট হেরে যান।
এই ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রসন্ন কান্তি তংচঙ্গ্যা কয়েকদিন আগে পাহাড়বার্তাকে বলেন, নেত্রী যাকেই মনোনয়ন দেন আমরা তার পক্ষে কাজ করবো,তবে বান্দরবানে এবার নতুন মুখের সম্ভবনা বেশি।
আরো জানা গেছে, সংগঠন বিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ড ও নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে মনগড়া সিন্ধান্ত নিয়ে দলীয় সুনাম ক্ষুন্ন করায় ২০১৩ সালের ২রা ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রসন্ন কান্তি তংচঙ্গ্যাকে বহিষ্কার করা হয়। ২০১৫ সালের জুন মাসে জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে হামলার অভিযোগে দলের জেলা সাধারণ সম্পাদক কাজি মুজিবুর রহমানসহ ২২ নেতাকর্মীকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে প্রসন্ন-মুজিব দুইজন দুই মেরুর বাসিন্দা হয়ে একে অপরের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহন করলেও গত বছরের ৯ ডিসেম্বর কক্সবাজারের একটি হোটেলে বহিষ্কৃত প্রসন্ন কান্তি তংচঙ্গ্যা ও কাজি মুজিবুর রহমান বৈঠক করেন এবং বীর বাহাদুরের বিরুদ্ধে প্রার্থী দাড় করানোর জন্য প্রস্তুতি নেন,যার অংশ হিসাবে এবার দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন তারা।
জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র ইসলাম বেবী একটি নিউজ পোর্টালকে জানান, যে কারোর নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহের অধিকার রয়েছে। তবে দল যাকে মনোনয়ন দেবে আমরা তার পক্ষে কাজ করবো।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।