বান্দরবানে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন

গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ এর বান্দরবান জেলা শাখার আয়োজনে পবিত্র জশনে জুলুছে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন উপলক্ষে বান্দরবানে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

২০ অক্টোবর (বুধবার) সকালে বান্দরবান পৌরসভা সংলগ্ন খানেকা শরীফ প্রাঙ্গণ হতে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করা হয়। র‌্যালীটি বান্দরবান শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে পুনরায় একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালি শেষে খানেকা প্রাঙ্গনে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ বান্দরবান পার্বত্য জেলা শাখার আয়োজনে জশনে জুলুসে ইদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিলের উদ্ভোদক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান পুলিশ প্রশাসনের ডিআইও-১ আব্দুল করিম। এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ এর সদস্য মোজাম্মেল হক বাহাদুর। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো.ওমর ফারুক,এডভোকেট এমদাদুল হকসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান জেলা গাউছিয়া কমিটির সহ-সভাপতি আসহাব উদ্দিন চৌধুরী, জেলা যুবসেনা, ছাত্রসেনার নেতৃবৃন্দ।

অনুষ্টানে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রামের ওষখাইন আলী নগর দরবার শরীফ এর পীরজাদা নিজাম উদ্দিন সিদ্দিকি। এসময় প্রধান ওয়ায়েজ ও সাধারণ সম্পাদক গাউছিয়া কমিটি বান্দরবান এর মাওলানা আবু তালেব মঈনী , বিশেষ ওয়ায়েজ সুয়ালক তুলাতলি বাজার জামে মসজিদ এর খতিব হাফেজ মাওলানা আজিজুর রহমান, বিশেষ ওয়ায়েজ দোফাছরি জামে মসজিদ এর খতিব মাওলানা মুহাম্মদ ফয়েজ উল্লাহ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে নাত পরিবেশন করেন নাত খাঁ আহসান হাবীব।

সভায় বক্তারা বলেন, ১২ রবিউল আওয়াল সকল ঈদের সেরা ঈদ ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) পবিত্র জশনে জুলুছে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশের সকল জেলায় উদযাপন করা হচ্ছে, তারই ধারাবাহিকতায় বান্দরবানে আমরা ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) পবিত্র জশনে জুলুছে ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন করছি। মানবাতার মুক্তির অগ্রদ্রুত হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এই পৃথিবীতে মানব জাতির মুক্তির জন্য ইসলাম ধর্ম প্রচার করেছেন, ইসলামের সঠিক জ্ঞান আহরন করে সঠিকভাবে তা মেনে চলার জন্য আহ্বান জানান।

এসময় বক্তারা বলেন, মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) এর জন্ম ও মৃত্যু দিবস আজকের এই দিনে। ৫৭০ খৃস্টাব্দের এ দিনে মক্কায় জন্ম গ্রহণ করেন তিনি আর ৬৩২ খৃস্টাব্দে একই দিনে ইহলোক ত্যাগ করেন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)। এসময় বক্তারা আরো বলেন, আইয়ামে জাহেলিয়াতের অন্ধকার দূর করতে এই দিনে তৌহিদের মহান বাণী নিয়ে এসেছিলেন এ মহামানব। বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায়সহ শান্তিকামী প্রত্যেক মানুষের কাছে আজকের দিনটি তাই অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।