বান্দরবানে করোনা রিপোর্ট আসতে ‘উপেক্ষিত’ অপেক্ষা !

করোনা ভাইরাস! নাম শুনলেই ভয় আর আতংকে যেন জড়োসড়ো সবাই। সারা বিশ্বের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জ্যামিতিক হারে দেশব্যাপী বাড়ছে করোনা আক্রান্তের হার, আর সেই সাথে বান্দরবানে বাড়ছে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।

বান্দরবানে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের তিন মাস পেরিয়ে গেলেও কমছে না সংক্রামন, বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। সেই সাথে বাড়ছে করোনার উপসর্গ থাকা মানুষের করোনা পরীক্ষা। বান্দরবানে করোনা উপসর্গ নিয়ে সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি হচ্ছে প্রতিনিয়িত, যাদের করোনা উপসর্গ আছে তাদের নমুনা সংগ্রহ করে কক্সবাজার ল্যাবে পাঠানো হচ্ছে, আবার কারো পাঠানো হচ্ছে চট্টগ্রামে।

জেলায় করোনা পরীক্ষার ল্যাব নেই, নেই কোন আই.সি.ইউ, নেই কোন সি.সি.ইউ এর ব্যবস্থা। ফলে করোনা রিপোর্ট পেতে দেরি হওয়াতে আক্ষেপ জানান বান্দরবানের স্থানীয় বাসিন্দারা।

বান্দরবান পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৌরভ দাশ শেখর বলেন, ১৮ দিন পর করোনার রিপোর্ট পেয়েছি, রিপোর্টে করোনা পজিটিভ। তিনি আরো জানান, নমুনা দেওয়ার পর এই ১৮ দিন নিজ পরিবার থেকে আলাদা হয়ে সম্পূর্ন হোম আইসোলেশনে অবস্থান করেছেন।

বান্দরবান পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর থুই সিং প্রু জানান,করোনা পরীক্ষার জন্য আজ ২০ দিন আগে নমুনা দিয়েছি, এখনো রিপোর্ট আসিনি, রিপোর্ট কবে আসবে তাও জানি না।

মেম্বার পাড়ার করোনা শনাক্ত নাজিম উদ্দীনের বড় ভাই আবু তাহের বলেন, আমার ছোট ভাই কোন উপসর্গ ছাড়া সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় আজ প্রায় ২০ দিন রিপোর্টের বেড়াজালে করোনা ওয়ার্ডে পড়ে আছে। আল্লাহ জানে কখন ২য় রিপোর্ট আসবে এবং তার আরও ১ সপ্তাহ পর আবার টেস্ট করাবে সেইটাও কয়দিন পর আসে? করোনা উপসর্গ বা খারাপ লাগলে এই হয়রানী দেখলে আমার মনে হয়না কেউ করোনা পরিক্ষা করতে যাবে।

জেলা শহরের বালাঘাটার মাহমুদ হাসান বলেন, আমি করোনা উপসর্গ দেখা দেওয়াতে আমি করোনার জন্য নমুনা দিয়েছি। আমার অনেক পরে নমুনা দিলে রিপোর্ট অতি দ্রুততার সাথে চলে আসলেও আমারটা এখনো আসি নি।

এব্যাপারে জানতে চাইলে বান্দরবানের সিভিল সার্জন ডা: অংসই প্রু মারমা পাহাড় বার্তা’কে বলেন, বান্দরবান থেকে করোনার নমুনা সংগ্রহ করে কক্সবাজার ল্যাবে পাঠানো হয়, এতে আমাদের রোগীদের রিপোর্ট আসতে ৭ থেকে ১০ দিন লেগে যায়। কক্সবাজার থেকে দ্রুত রিপোর্ট আসলে আমরা করোনা রোগীদের আলাদা করতে পারতাম এবং তাদের জরুরী চিকিসা সেবা প্রদান করতে সক্ষম হতাম।

তিনি আরো জানান, বান্দরবানে এই পর্যন্ত নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১ হাজার ৫০৮ জনের, তার মধ্য রিপোর্ট মিলেছে ৯ শত ৬৬ জনের, এদের মধ্য ৭১ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ পাওয়া যায়।

প্রসঙ্গত, করোনা পরীক্ষার দ্রুত প্রতিবেদন পেতে বান্দরবানে করোনা ল্যাব স্থাপনের জন্য গত ৯জুন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ে জরুরী পত্র পাঠান সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এ কে এম জাহাঙ্গীর।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।