বান্দরবানে গত দুই মাসে ২,৬৭,৮৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার : আটক অন্তত ১৬ জন

সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় বান্দরবান জেলায় অবাধে প্রবেশ করছে মরণঘাতী মাদকদ্রব্য। বিশেষজ্ঞের মতে, জেলার কিছু অংশ মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী হওয়ার কারণে মাদক চোরাকারবারীরা সহজে মাদকের চালান নিয়ে আসছে জেলায়। জেলার সীমান্তবর্তী নাইক্ষ্যংছড়ি, আলীকদম, থানচি, রুমা উপজেলা মূলত মিয়ানমার এবং ভারতের কাছাকাছি হওয়ার কারণে মাদক চোরাকারবারীদের অবাধ বিচরণে জেলায় মাদকের কারবার বাড়ছে। আর এ নিয়ে প্রতিবেদন তৈরী করেছেন পাহাড়বার্তা’র গবেষণা সেল এর প্রধান সুহৃদয় তঞ্চঙ্গ্যা।

পাহাড় বার্তা’র গবেষণা সেল এর তথ্য অনুসারে গত নভেম্বর মাসে বান্দরবান জেলায় ২,৬৭,৮৫০ পিস ইয়াবা, ২০০ লিটার মদ, ১৭০ রাউন্ড গুলিসহ ১৮টি দেশি-বিদেশি অস্ত্র ও ২ সেট ইউনিফর্ম এবং ৮৫ ভরি স্বর্ণসহ উদ্ধার হয়েছে। আটক হয়েছে অন্তত ১৬ জন, এদের মধ্যে ৫ জনই রোহিঙ্গা নাগরিক।

বান্দরবান জেলা পুলিশ সুপার জেরিন আক্তার জানান, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা মায়ানমারের সীমান্তবর্তী হওয়ার কারণে মাদক চোরাকারবারিরা সহজে প্রবেশ করছে। মাদক বিরোধী অভিযানে পুলিশের পাশাপাশি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বিজিবিসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি স্থানীয় মানুষের সহযোগীতা প্রয়োজন বলে জানান।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।