বান্দরবানে পরিবেশের ক্ষতিসাধনের দায়ে ৪ ইটভাটাকে জরিমানা

ছাড়পত্রহীন ইট ভাটা পরিচালনা, বায়ু দূষণ, পুকুর ভরাট ও পাহাড় কর্তনের মাধ্যমে পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিসাধনের দায়ে বান্দরবান সহ চট্টগ্রামের সাত প্রতিষ্ঠান ও এক ব্যক্তিকে ১৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ আরোপ করেছে পরিবেশ অধিদফতর।

গত মঙ্গলবার পরিবেশ অধিদফতরের চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয়ের পরিচালক মুফিদুল আলম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই ক্ষতিপূরণ আরোপ করা হয়।

প্রতিষ্ঠানগুলো হলো, ফটিকছড়ির জান্নাত ব্রিকস, পাইন্দং ব্রিকস, সীতাকুণ্ডের শীতলপুর অটো স্টীল মিল, বান্দরবানের বি এন সি ব্রিকস, কে সি ডি ব্রিকস, পি বি এম ব্রিকস, এ আর বি ব্রিকস এবং রাঙ্গুনিয়ার মো. আয়ুব।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পরিবেশ অধিদফতরের চট্টগ্রাম অঞ্চল কার্যালয় কর্তৃক জানা যায় ছাড়পত্রহীন ইট ভাটা পরিচালনা, বায়ু দূষণ, পুকুর ভরাট ও পাহাড় কর্তনের মাধ্যমে পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিসাধন করায় বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন, ১৯৯৫ (সংশোধিত ২০১০) এর ধারা ৭ ও ১২ এর আলোকে প্রতিষ্ঠানগুলোকে ক্ষতিপূরণ ধার্য করেছে। আদেশ প্রতিপালনে ব্যর্থ হলে ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে মর্মে সতর্ক করা হয়েছে।

পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক মুফিদুল আলম বলেন, বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাসিয়াখালী ও চট্রগ্রামের ফটিকছড়িততে অভিযান চালিয়ে পাহাড় কেটে পরিবেশের ক্ষতি সাধন করে ইটভাটা স্থাপনের দায়েটি ইটভাটার মালিককে ১৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করেছি। আমরা তাদেরকে পাহাড় কেটে এ ধরনের ইটভাটা না করে আধুনিক পদ্ধতির ঝিকঝাক ইটভাটা তৈরি করার জন্য পরামর্শ দিয়েছি। আমাদের এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে। যারাই পরিবেশের ক্ষতি করে অবৈধভাবে ইটভাটা স্থাপন করবে তাদেরকে জরিমানা করা হবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।