বান্দরবানে প্রতিনিধি ছাড়া চলছে ৫টি টেলিভিশন চ্যানেল

টেলিভিশন চ্যানেলের লগো
টেলিভিশন চ্যানেলের লগো
দেশের প্রতিষ্ঠিত ২টি নিউজ চ্যানেলসহ মোট ৫টি টেলিভিশনে দীর্ঘদিন ধরে বান্দরবান জেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ দিতে পারছেনা, বিভিন্ন পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে এবং তাদের অন্য জেলা প্রতিনিধিদের মাধ্যমে প্রতিনিধি নিয়োগের জন্য চেষ্টা করলেও কার্যত কোন প্রতিনিধি নিয়োগ দিতে পারেনি।
স্থানীয় সংবাদকর্মীদের সূত্রে জানা গেছে, একদিকে দক্ষ জনবল সংকট, অন্যদিকে পাহাড়ি এলাকায় সংবাদ সংগ্রহে প্রচুর অর্থ খরচ হলেও সেই তুলনায় প্রতিষ্ঠানগুলোতে বেতনসহ সুযোগ-সুবিধা অনেক কম হওয়া এবং বেতন বৈষম্যের শিকার হওয়ার কারনে অনেকে প্রতিষ্ঠান থেকে পদত্যাগ করছে।
এই ব্যাপারে সময় টেলিভিশনের বান্দরবান প্রতিনিধি এস বাসু দাশ পাহাড়বার্তাকে বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন কারনে সমতলের তুলনায় এখন পাহাড়ে সাংবাদিকতার ব্যয় বেশ বেড়েছে। আগে আমরা বিনা খরচে দূর্গম এলাকার আদিবাসীদের জীবন যাত্রার চিত্র অনাসয়ে ধারণ করতে পারতাম, এখন বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা সৌখিন ফটোগ্রাফাররা অর্থ দিয়ে চিত্র ধারণ করছে, যারা ফলে এসব চিত্র ধারণে অর্থ দিতে হয় আমাদেরও। আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি হওয়ার কারনে বিশেষ করে টেলিভিশনে কাজ করতে আগ্রহী হচ্ছেনা নবীনরা।
সংবাদকর্মীদের সূত্রে আরো জানা গেছে, ২৪ ঘন্টার নিউজ চ্যানেল যমুনা টিভি, ইনডিপেনডেন্ট টিভি, বিনোদন নির্ভর চ্যানেল গুলোর মধ্যে দীপ্ত বাংলা ও দেশ টিভিতে বান্দরবান জেলায় প্রতিনিধি নেই। গত ৩ মাস আগে যমুনা টেলিভিশন থেকে চ্যানেলটির জেলা প্রতিনিধি রফিকুল আলম, অন্যদিকে গত ৪ মাস আগে ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন থেকে সৈকত দাশ পদত্যাগ করে।
এনটিভি’র বান্দরবান প্রতিনিধি আলাউদ্দিন শাহরিয়ার পাহাড়বার্তাকে বলেন,পাহাড়ের সাংবাদিকরা বেতন বৈষম্যের শিকার। পারিশ্রমিক আশানুরুপ না দিলেও চ্যানেলগুলোর কর্তাব্যক্তিরা কাজ প্রত্যাশা করে আকাশ সমান। প্রত্যাশার সঙ্গে প্রাপ্তির মিল না ঘটায় পাহাড়ের সাংবাদিকরা টিভি সাংবাদিকতায় আগ্রহ হারাচ্ছে। কাজের গুনগত মান এবং ভালো প্রতিনিধির জন্য অফিসগুলোর বেতন আর নিউজ বিল বাড়াতে হবে।
আরো জানা গেছে, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন স্থানীয় দৈনিক “নতুন বাংলাদেশ” পত্রিকায় প্রতিনিধি নিয়োগের বিজ্ঞাপন প্রকাশ করলেও সংবাদকর্মী না পাওয়ার কারনে তারা প্রতিনিধি নিয়োগ করতে পারেনি। যমুনা টেলিভিশন বান্দরবানের পাশ্ববর্তী জেলা প্রতিনিধিদের মাধ্যমে প্রতিনিধি নিয়োগের জন্য সংবাদকর্মী সংগ্রহের চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হচ্ছে।
দৈনিক “নতুন বাংলাদেশ” পত্রিকায় ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন  এর বান্দরবান প্রতিনিধি নিয়োগের বিজ্ঞাপন
দৈনিক “নতুন বাংলাদেশ” পত্রিকায় ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন এর বান্দরবান প্রতিনিধি নিয়োগের বিজ্ঞাপন

বান্দরবান প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক, এটিএন নিউজ ও এটিএন বাংলার জেলা প্রতিনিধি মিনারুল হক পাহাড়বার্তাকে বলেন, সমতল এলাকায় সংবাদ সংগ্রহের তুলনায় পাহাড়ে সংবাদ সংগ্রহ করা অনেক কষ্টকর ও ব্যয়বহুল, বিশেষ করে যদি এলাকায় গিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে হয় কিন্তু সংবাদ কর্মীরা সে খরচ পায় না । পাহাড়ে যারা কাজ করে তাদের জন্য আলাদা চিন্তা করলে ভাল হয় বলে মনে করি।
আরো জানা গেছে, দেশ টিভিতে বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি হিসাবে আহসানুল হক রুমু দায়িত্ব পালন করলেও গত ১ বছর আগে তাকে প্রতিষ্ঠানটি থেকে ছাটায় করলে বান্দরবানে কোন প্রতিনিধি নিয়োগ দিতে পারেনি চ্যানেলটি। অন্যদিকে দীপ্তবাংলা টেলিভিশন শুরু থেকে কোন প্রতিনিধি নিয়োগ দিতে পারেনি, সম্প্রচারের অপেক্ষায় থাকা নাগরিক টেলিভিশনে প্রতিনিধি হতে কোন সংবাদকর্মী আগ্রহ প্রকাশ করেনি।
বান্দরবান টিভি রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন এর সভাপতি,চ্যানেল ২৪ এর জেলা প্রতিনিধি ফরিদুল আলম সুমন পাহাড় বার্তাকে বলেন, জেলা পর্যায়ের সাংবাদিকদের যে বেতন-ভাতা বা পারিশ্রমিক নির্ধারিত আছে, তা দিয়ে একজন সংবাদকর্মীর পক্ষে মাসব্যাপী কাজ করা সম্ভব নয়। তাছাড়া বাংলাদেশের টেলিভিশন সাংবাদিকতা এখনো জেলা পর্যায়ে এক ধরনের বিকাশমান অবস্থায় রয়েছে। প্রিন্ট মিডিয়ার জন্যে সংবাদ সংগ্রহ এবং প্রেরণ যতোটা কম খরচে করা সম্ভব, ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় তা সম্ভব নয়।
তিনি আরো বলেন, টিভি চ্যানেলগুলো থেকে জেলায় এখনো কোনো লজিস্টিক সুবিধা দেওয়া হয়না। তাই বান্দরবানের সংবাদকর্মীরা কম মজুরিতে বেশি পরিশ্রম এবং বেশি খরচের কাজ করার দায়িত্ব নিচ্ছেনা।

এদিকে আগামীতে নতুন কোন টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচারে আসলে বান্দরবানে তাদের প্রতিনিধি নিয়োগ দিতে পারবে কিনা সন্দেহ প্রকাশ করেছে স্থানীয় সংবাদকর্মীরা।

আরও পড়ুন
2 মন্তব্য
  1. Raju Barua বলেছেন

    আমাদের রফিক ভাই কি যমুনা টিভিতে নাই,

  2. ফারুক হোসেন বলেছেন

    আমি লালমনির হাট জেলায় প্রতিনিধি কাজ করতে চাই ০১৭৬২২০৫০৬৬

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।