বান্দরবানে বোমা বিস্ফোরনে সেনা সদস্য নিহত : লামা’র বাড়িতে কান্নার রোল

বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাসিঁয়াখালী ইউনিয়নে হায়দার নাসী এলাকায় জাহেদুলের বাড়িতে শোকের ছায়া
বান্দরবান সদর উপজেলার সুয়ালক ইউনিয়নের আমতলী এলাকায় সেনাবাহিনীর ভারি অস্ত্রের ফায়ারিং রেঞ্জে পরিত্যক্ত সেল (বোমা) বিস্ফোরণে সেনা সদস্য জাহেদুল ইসলাম (২৮) নিহত হওয়ার ঘটনায় তার লামার ফাঁসিয়াখালীর বাড়িতে কান্নার রোল পরেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, তার বাড়ি বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাসিঁয়াখালী ইউনিয়নে হায়দার নাসী এলাকায়। এসময় আহত হয়েছেন সেনা সদস্যসহ আরো ১১ জন। ঘটনা জানার পর থেকে জাহেদুলের পরিবারে নেমে আসে শোকের ছায়া।
৬ ভাই ও দুই বোনের মধ্যে জাহেদুল একজন। জাহেদুলের বৃদ্ধ কৃষক পিতা ইউছুফ জালাল ঘটনা শুনার পর থেকে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন, আছেন পুত্রের লাশের অপেক্ষায় । ঘটনার পর থেকে এলাকার লোকজন তাদের বাড়িতে গিয়ে সান্তনা দিতে দেখা যায়।
এই ব্যাপারে জাহেদের ছোট ভাই মিজবা উদ্দিন পাহাড় বার্তাকে বলেন, ঘটনার পর সেনা সদস্যদের একজন ফোন করে আমাদের ভাই আহত হয়েছে বলে দোয়া করতে বলেন, এরপর আর কোন খবর পায়নি আমরা।
বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাসিঁয়াখালী ইউনিয়নে হায়দার নাসী এলাকায় জাহেদুলের বাড়িতে প্রতিবেশীদের ভীর
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আজ শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। হতাহত সেনা সদস্যরা কুমিল্লা সেনানিবাসের ১৬-প্যারা ব্যাটালিয়নের সদস্য। আাগামীকাল শনিবার বিকেলে ওই এলাকায় ফায়ারিং হওয়ার কথা ছিল। এ উপলক্ষে তারা ঝোপ-জঙ্গল পরিস্কার করছিলেন। এ সময় হঠাৎ ওই বিস্ফোরণ ঘটে। ঘটনার পর আহতদের ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নেওয়ার পথে জাহেদুল মারা যান। আহতরা হলেন, সৈনিক হাসান, তারেকুল, আসাদ, নিপুন চাকমা, রাজু, মোস্তাফিজ ও আরিফ, অন্যদের নাম জানা সম্ভব হয়নি। ঘটনার পর সেনাবাহিনী এলাকাটি ঘিরে রেখেছে।
বান্দরবানের পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
গত কয়েকবছর আগে আমতলী এলাকায় সেনাবাহিনীর ফায়ারিং রেঞ্জে পরিত্যাক্ত সেল ও বোমা বিস্ফোরনে নিহত ও আহত হবার ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।