বান্দরবানে স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

করোনা মোকাবেলায় বান্দরবানে স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে সমন্বয় সভা করেছে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিট এর নেতৃবৃন্দরা।

সোমবার (২৬ জুলাই) দুপুরে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ কার্যালয়ে এই সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বান্দরবানের ৭টি উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ সদর হাসপাতালে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের সদস্যরা কিভাবে কাজ করছে এবং আগামীতে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় কি করণীয় তা নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়।

পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা এর সভাপতিত্বে এসময় সভায় উপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন ডা ঃ অং সুই প্রু মারমা, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম চৌধুরী, সেক্রেটারি অমল কান্তি দাশ, সদস্য গাব্রিয়েল ত্রিপুরা, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের লেভেল অফিসার মোশারেফ হোসেনসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সংবাদকর্মীরা।

এসময় সভায় পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা বলেন, করোনার শুরু থেকে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের সদস্যরা স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে সমন্ধয় করে কাজ করে যাচ্ছে আর এই সমন্ধয় এর ফলে বান্দরবানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা অনেকাংশে কম হচ্ছে এবং মৃত্যু ও কম। চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা এসময় আরো বলেন, দেশের এই দুর্র্যোগ মহুর্তে আমাদের সকলকে সমন্ধয় করে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে এবং কোভিট মোকাবেলা করে একটি সোনার বাংলাদেশ নির্মাণ করতে হবে।

রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের সেক্রেটারি অমল কান্তি দাশ বলেন, করোনা রোগীদের প্রয়োজনে বিনামুল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদানে কাজ করছে এই ইউনিট । তাছাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও সদর হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা এবং ভ্যাকসিন নিতে আসা জনসাধারণকে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের সদস্যরা বিনামুল্যে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য তাদের কর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছে।

রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের সেক্রেটারি অমল কান্তি দাশ আরো বলেন,আমরাবান্দরবান সদর হাসপাতাল এর প্রাঙ্গনে একটি অপেক্ষাগার স্থাপনের কাজ করছি এবং এই অপেক্ষাগার এর কাজ শেষ হলে সেখানে হাসপাতালে ভ্যাকসিন নিতে আসা মানুষ সুশৃংঙ্খলভাবে বসতে পারবে এবং নিরাপদে অবস্থান করে ভ্যাকসিন নিয়ে নিজ বাড়ীতে ফেরত যেতে পারবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।