বান্দরবানে ৬ষ্ট বারের মতো সংসদ সদস্য হচ্ছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী বীর বাহাদুর

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বাবু বীর বাহাদুর উশৈসিং (এমপি)
সারাদেশের ন্যায় বান্দরবান সংসদীয় আসনের ১৭৬ টি ভোট কেন্দ্রে সকাল থেকে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ন ভাবে ভোট গ্রহন শেষ হয়। সর্বশেষ ৭৫টি ভোট কেন্দ্রের প্রাপ্ত ফলাফলে টানা পাঁচবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের প্রার্থী বীর বাহাদুর ঊশৈসিং (নৌকা) ৭৩,৫৬০ ভোট পেয়ে এগিয়ে আছেন, অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী সাচিং প্রু জেরী (ধানের শীষ) ২৮,৭১২ ভোট ও ইসলামী আন্দোলনের শওকতুল ইসলাম (হাতপাখা) ৬১২ ভোট, ইসলামী ঐক্যজোট থেকে বাবুল হোসেন (মিনার) ১৮৮ ভোট পান। তবে পাহাড়বার্তার কাছে উপজেলাগুলো থেকে আসা বেসরকারী প্রাপ্ত ফলাফলের তথ্যে জানা যায়, বিপুল ভোটে জয় লাভ করে ৬ষ্ট বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হচ্ছেন বীর বাহাদুর।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে দিয়ে আজ রবিবার সকাল থেকে বান্দরবানের ভোট কেন্দ্রগুলোতে পাহাড়ের তীব্র শীত উপেক্ষা করে ভোটাররা লাইনে দাঁড়িয়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে। শীতের তীব্রতা থাকায় ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতি অনেকটা কম, তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে এই সংখ্যা বাড়ে। মূলত সকাল ১০টার পর থেকে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের ভীর পরিলক্ষিত হয়।
জেলা শহরের ৪নং ওয়ার্ডের ভোটার মো : ইসহাক জানান, ভোট খুব শান্তিপূর্ণভাবে হয়েছে। সকালে কেন্দ্রে গিয়ে আমরা ভোট দিয়েছি ,এত সুন্দর ভোটের পরিবেশ আর কোথাও নেই ।
এদিকে আজ রবিবার সকাল ৯টার দিকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বীর বাহাদুর বান্দরবান সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করে এবং ভোটারদের ভোট দেবার জন্য ধন্যবাদ জানান।
এই ব্যাপারে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বীর বাহাদুর উশৈসিং জানিয়েছেন, ভোটাররা উৎসাহ উদ্দীপনা নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিয়েছেন, আমি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী ।
এদিকে দুপুরের দিকে শহরের আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালাঘাটা বিলকিছ বেগম উচ্চ বিদ্যালয়, বাসস্টেশন কেন্দ্রসহ ৪টি কেন্দ্রে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির কর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে পুলিশ দ্রুত পরিস্থিতি নিয়স্ত্রনে আনে। প্রতিটি ভোট কেন্দ্র পুলিশ,বিজিবির ও সেনা সদস্যদের টহল জোরদার হওয়ার কারনে জেলার কোন কেন্দ্রে বড় ধরণের সংঘাতের খবর পাওয়া যায়নি।
এই ব্যাপারে বিএনপির প্রার্থী সাচিং প্রু জেরী বলেন, পুলিশ সংঘাত উস্কে দিয়েছে, অপ্রিতিকর ঘটনার জন্য পুলিশ দায়ী।
আরো জানা গেছে, জেলার ১৭৬টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১৩টি রোয়াংছড়ির রনিন পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দৈয়কুমার পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, থানচির বড় মধু বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রেমাক্রী বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ছোট মধু সাখইউ কারবারি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জিন্না পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রুমার তিন্দু গ্রুপিং পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চাইথোয়াইহ্লা কারবারি পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নুনতিয়া পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাকনিয়া পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চিংলক পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আলীকদমের পোয়ামুহুরী মৈত্রী স্কুল, মাংরুম পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কুরুকপাতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মোট ১৩টি ভোট কেন্দ্রের হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হয়, ফলে ভোট কেন্দ্রগুলির মধ্যে কয়েকটি কেন্দ্রের ফলাফল পেতে দেরি হবে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা।
বান্দরবান ৩০০ নম্বর সংসদীয় আসনে এবারে মোট ভোটার ২ লাখ ৪৬ হাজার ৭৫৪ জন। এর মধ্যে ১ লাখ ২৮ হাজার ১৩০ জন পুরুষ ও ১ লাখ ১৮ হাজার ৭৫৪ জন নারী ভোটার। এই আসনে মোট ভোট কেন্দ্র ১৭৬টি ।
প্রসঙ্গত,বান্দরবান ৩০০নং আসনে আওয়ামী লীগ থেকে বীর বাহাদুর ঊশৈসিং, বিএনপির থেকে সাচিং প্রু জেরী ও ইসলামী আন্দোলন থেকে শওকতুল ইসলাম, ইসলামী ঐক্যজোট থেকে বাবুল হোসেন প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।