বান্দরবান আসনে নির্বাচনী প্রচারে ভাষা যখন বড় বাধা

বাঙালীসহ ১২টি ভাষাভাষীর বসবাস বান্দরবান পার্বত্য জেলায়, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রার্থীরা প্রতিটি ভাষাভাষী ও সম্প্রদায়ের বাসায় যেতে চেষ্টা করছেন, আর ভোট চাওয়ার ক্ষেত্রে ভাষাগত সমস্যার কারনে বেকায়দায় আছে জেলার তিন প্রার্থী।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বান্দরবানের দুই প্রার্থী মারমা সম্প্রদায়ের এবং একজন বাঙালী সম্প্রদায়ের হলেও আওয়ামীলী প্রার্থী বীর বাহাদুর উশৈসিং ও বিএনপি প্রার্থী সাচিং প্রু জেরী মারমা ও বাংলাভাষা ২টি ভাষা বলতে পারেন, আর অনেকটা বাংলা ভাষার মতো হওয়ার কারনে চাকমা ভাষা বুঝতে পারেন, অন্যদিকে বাংলা ভাষাভাষী একমাত্র প্রার্থী ইসলামী আন্দোলনে শওকতুল ইসলাম তিনি বাংলা ছাড়া অন্য ভাষা জানেন না, ফলে ভোটারদের সাথে মত বিনিময়ে সমস্যা হচ্ছে এই প্রার্থীর।
দলগুলোর সূত্রে জানা গেছে, এই সমস্যা মেটাতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির এই দুই প্রার্থী ভোট চাওয়ার জন্য মাত্র কয়েকটি লাইন রপ্ত করেছেন, প্রতিটি জনসভায় বিভিন্ন ভাষাভাষীরা উপস্থিত থাকলে তারা প্রতিটি ভাষায় “নমস্কার”, “৩০ তারিখ নৌকায় ভোট দিন” বা “ধানের শীষে ভোট দিন” বলে বাংলা বা মারমা ভাষায় ভোটের জন্য প্রচারণা চালাচ্ছেন।
এই ব্যাপারে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রেজা বলেন, এই ক্ষেত্রে কিছু সমস্যা থাকলেও আমরা প্রচারণার ক্ষেত্রে পিছিয়ে নেয়।
আরো জানা গেছে, সম্প্রতিক সময়ে আওয়ামীলীগ প্রার্থী বীর বাহাদুর রোয়াংছড়ির কচ্ছপতলিতে মারমা, বম, ম্রো ভাষায় ভোটারদের নমস্কার দেন, অন্যদিকে থানচি উপজেলায় বিএনপির প্রার্থী সাচিং প্রু জেরী মারমা, বাংলা ভাষায় ভোট দেবার আহবান জানান। যে এলাকায় যে ভাষাভাষী ভোটার বেশি সেই এলাকায় তারা এই ভাবেই ভোটারদের কাছে টানতে বক্তব্য দিচ্ছেন।
আরো জানা গেছে, ভাষাগত সমস্যার কারনে প্রার্থীরা তাদের নিজ নিজ দলের বিভিন্ন সম্প্রদায়ের বিভিন্ন ভাষাভাষী নেতাদের বান্দরবান আসনের বিভিন্ন এলাকায় নিয়ে যাচ্ছেন, ভোটারদের ভোট চাওয়ার জন্য মূলত বিভিন্ন ভাষাভাষী নেতারা ভোট আদায়ের আহবানে সভা-সমাবেশগুলোতে মূল বক্তব্য দিচ্ছেন,যা প্রার্থীদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছেনা।
এই ব্যাপারে জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি একে এম জাহাঙ্গীর বলেন, ভোট চাওয়ার ক্ষেত্রে ভাষাগত কিছু সমস্যা থাকলে আমরা প্রচারনায় অন্য প্রার্থীর চেয়ে অনেক অনেক এগিয়ে আছি।
প্রসঙ্গত, বান্দরবান ৩০০নং আসনের মোট জনসংখ্যা ৪ লক্ষ ৪ হাজার তিরানব্বই জন। বাঙালী ভোটার ২লক্ষ ২৪হাজার ৬৯৩জন। অন্যদিকে আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে মারমা ৮০,৬২২জন, চাকমা ৭,৮১জন, ম্রো ৩৯৫৬৫,ত্রিপুরা ২১৫২৫, বম ১১৬৩৭,তংচঙ্গ্যা ১০৩৫৭,খিয়াং ২৯৮৬,চাক ২৩৯২,খুমি ৪৩৪ লুসাই ৩৯৯,পাংখোয়া ১৭৩জন। মোট ভোটার ২ লক্ষ ৪৬ হাজার ১৮৩ জন। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ১লক্ষ ২৮ হাজার ২২৯জন এবং মহিলা ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ১৭হাজার ৮৫৪জন।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।