বান্দরবান শহরে সড়ক বিভাগের জায়গা দখল করে অবৈধ দোকান !

বান্দরবানে সড়ক ও জনপথ বিভাগের জায়গা অবৈধ ভাবে দখল করে প্রতিদিনই গড়ে উঠছে অবৈধ নতুন নতুন স্থাপনা। এবার এর ব্যতিক্রম হয়নি শহরের সেগুন বাগিচা এলাকায়।

বাংলাদেশ সড়ক ও মহাসড়ক আইন অনুযায়ী, কোনো সড়ক বা মহাসড়কের ৬০ ফুটের মধ্যে কোনো স্থাপনা নির্মাণ করা যাবে না। কিন্তু সে আইন মানা হচ্ছেনা, তা বোঝা যায় বান্দরবান-রাঙ্গামাটি চন্দ্রঘোনা সড়কের পৌরসভার সেগুন বাগিচা এলাকায় সড়ক ও জনপথের (সওজ) জায়গায় প্রায় ২০টি ও বেশি অবৈধ স্থাপনা গড়ে তোলা হয়েছে।

স্থানীয় টম টম চালক নুরুল ইসলাম জানান, রাস্তার কয়েক ফুটসহ জমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা তৈরি করায় অনেক স্থানে সড়ক সংকীর্ণ হয়ে গেছে। এতে প্রায়ই মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। রাস্তার দু’পাশ দখলমুক্ত থাকলে দুর্ঘটনা অনেকটাই কমে আসবে।

সরেজমিন দেখা গেছে, সেগুন বাগিচা এলাকার সড়ক ও জনপথের জায়গা দখল করে গড়ে উঠেছে হোটেল-রেস্তোরাঁ, গ্যারেজ সহ নানা ধরনের দোকান। নতুন ভাবে দখল করে রাস্তার পাশ ঘিরে গড়ে উঠেছে আরো ৩ টি দোকান। পৌর এলাকার হাফেজ ঘোনার বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম গংরা মিলে রাতের আঁধারে এই তিনটি দোকান গড়ে তুলছে। শুধু সড়কের পাশে নয়, দখল হয়েছে মূল রাস্তার ৩ ফুট পর্যন্ত। এ কারণে চলাচলে প্রতিবন্ধকতারও সৃষ্টি হচ্ছে।

জানা গেছে, এসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে পার্ক করে রাখা মোটরসাইকেল, অটোবাইকের লম্বা লাইনের কারণে যানবাহন ও মানুষের চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত শিশু পার্কে যাওয়া অনেকে স্থানটিতে দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। দখলদারদের ক্ষমতার দাপটে কেউ মুখ খুলতে সাহস পান না। অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করছেন দোকানীরা। ভাড়ার পাশাপাশি দেওয়া হয়েছে মোটা অঙ্কের জামানতও।

এই ব্যাপারে নতুন করে দখলে নেওয়া সাইফুল ইসলামের নাম্বারে কল দেওয়া হলে নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।

গ্যারেজ ও হোটেল-রেস্তোরাঁর মালিকসহ কয়েকজন অবৈধ দখলদার ব্যবসায়ী জানান, সরকারি জমি পড়ে থাকে। এ কারণে দোকানপাট তৈরি করা হয়েছে। এসব অবৈধ দোকান নিয়ে সওজের পক্ষ থেকে এখনো পর্যন্ত কোনো নোটিশ দেওয়া হয়নি বলে জানান তারা। তবে কর্তৃপক্ষ না চাইলে তারা দোকান তুলে নেবেন বলে জানান।

বান্দরবান সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী মোসলে উদ্দীন বলেন, সড়কের রাস্তা দখলের কথা আমরা শুনেছি, ঘটনাস্থলে গিয়ে সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।