বীর বাহাদুরের ওপেন চ্যালেঞ্জ

তিন পাহাড়ের মানুষই আমার আপনজন। অনেককে বলতে শুনি, আমি বান্দরবানের মানুষ। বান্দরবানকে বেশী প্রাধান্য দেয়। তাদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, এই পাহাড়ের প্রতিটি ঘরই আমার ঘর। কেউ যদি প্রমাণ করতে পারেন আমি উন্নয়ন বরাদ্দে বৈষম্য করি, তাহলে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিয়ে যাচ্ছি প্রমাণ করে দেখান।

আজ রোববার (২৪নভেম্বর) সকালে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল ও সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশেসিং, এমপি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পার্বত্য তিন জেলায় উন্নয়ন বরাদ্দ দেওয়ার ক্ষেত্রে কোন বৈষম্য করেন না। পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষের অক্সিজেন হিসেবে কাজ করছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাহাড়ের মানুষের সুষম উন্নয়নে তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুত প্রতিটি জেলায় বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের কথা বাস্তবায়ন হচ্ছে। রাঙ্গামাটিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স্থাপন করেছেন। মনে রাখতে হবে আমাদের সীমিত সম্পদ নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে। বান্দরবানে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হয়েছে। খাগড়াছড়ির শিক্ষানুরাগীরা ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়সহ উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করতে চাইলে দাপ্তরিক ও কারিগরি সহযোগীতার আশ্বাস দেন মন্ত্রী।

খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপির সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম, কেন্দ্রীয় উপ-প্রচার সম্পাদক মো.আমিনুল ইসলাম, উপ-দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।

দীর্ঘ ৭ বছর পর উৎসবমুখর পরিবেশে খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগের ত্রিবার্ষিক কাউন্সিল ও সম্মেলন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

আরও পড়ুন
1 মন্তব্য
  1. অনন্ত বলেছেন

    মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় রাঙ্গামাটি টু বান্দরবানের যোগযোগ পথে কাপ্তাই ফেরি খুবই কষ্টদায়ক। দয়া করে সেখানে একটি সেতু করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করলে অত্র অঞ্চল এবং আমরা যারা যাতায়াত করি তারা খুবই উপকৃত হবো।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।