ভারতের মাটিতে পা রাখলেন পাইলট অভিনন্দন

গত দুই দিন যাকে ঘিরে ভারত-পাকিস্তান সংকটের আলোচনা উত্তাপ ছড়িয়েছে, ভারতীয় বিমানবাহিনীর সেই পাইলট অভিনন্দন বর্তমান মুক্তি পেয়ে পাকিস্তান থেকে দেশে ফিরলেন। সংবাদমাধ্যম টাইমস নাউ তার দেশে ফেরার খবর নিশ্চিত করেছে। সারা ভারত তার ভূমিকাকে বীরোচিত মনে করছে। যেখানে তাকে হস্তান্তর করার কথা ছিল, সেই ওয়াঘা সীমান্তে এখন মানুষের ভিড়। সংবাদমাধ্যমের নজরও এখন সেখানেই কেন্দ্রীভূত।
মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় বিমানবাহিনী পাকিস্তানের আকাশসীমায় ঢুকে বিমান থেকে বোমাবর্ষণ করে। পরদিন বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে দুটি ভারতীয় যুদ্ধবিমান ভূপাতিত ও এক পাইলটকে আটক করে পাকিস্তান। পাল্টাপাল্টি হামলায় দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে ইঙ্গিত দেন, শান্তি স্থাপনে ভূমিকা রাখলে তারা অভিনন্দনকে ফিরিয়ে দিতে রাজি। এরপর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী তার মুক্তির সিদ্ধান্ত জানান। অসমর্থিত সূত্রে বিজনেস টুডে জানিয়েছে, এরইমধ্যে তিনি লাহোরে পৌঁছেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

অসমর্থিত সূত্রে বিজনেস টুডে কিছুক্ষণ আগে তার লাহোরে পৌঁছানোর খবর দিয়েছিল। এবার সম্প্রচারমাধ্যম টাইমস নাউ জানালো, অভিনন্দন এখন ভারতের মাটিতে। তিনি সে দেশের কাস্টমস অফিসে রয়েছেন। অমৃতসর থেকে বিশেষ বিমানে করে তাকে দিল্লিতে নেওয়া হবে। সংবাদমাধ্যম নিউজ এইটিন জানিয়েছে, পাকিস্তানের কাস্টমস বিভাগে প্রয়োজনীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে ভারতীয় সময় ৫টা ২০ মিনিটের দিকে অভিনন্দন ভারতের মাটিতে পা রাখেন। অভিনন্দনের মুক্তির ঘটনায় কিছুক্ষণের মধ্যে বিমানবাহিনীর পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে। তিনি নিজেও মিডিয়ার সামনে হাজির হতে পারেন, বিভিন্ন অসমর্থিত সূত্রের বরাতে জানিয়েছে ভারতের সংবাদমাধ্যম।

যেখানে ভারতের পক্ষ থেকে অভিনন্দনকে বরণ করা হচ্ছে লাহোর থেকে সেই ওয়াঘা সীমান্তের দূরত্ব মাত্র ২৩ কিলোমিটার। কড়া নিরাপত্তায় ঢেকে ফেলা হয়েছে পুরো এলাকা। বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সকে সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে। আর নিরাপত্তার কারণেই শুক্রবার ওয়াঘা-আটারি সীমান্তে বন্ধ করা হয়। তবে এতো নিরাপত্তার মধ্যেও অভিনন্দনকে বরণ করতে উৎসব শুরু হয়ে গেছে। সাধারণ মানুষরাও যোগ দিয়েছেন এই আনন্দ উৎসবে। সীমান্তে অভিনন্দনের বাবা এস বর্তমান এবং মা শোভা বর্তমান গেছেন তাকে স্বাগত জানাতে। ভারতীয় বিমানবাহিনীর সদস্য আর সেনা কর্মকর্তারাও রয়েছেন সেখানে।

সীমান্তে হাজার হাজার ভারতীয় হাতে ফুল, মিষ্টি, ব্যানার নিয়ে অভিনন্দনকে স্বাগত জানাতে জড়ো হয়েছেন। কেউ জাতীয় পতাকা হাতে তো কেউ আবার ঢাকঢোল হাতে অভিনন্দকে স্বাগত জানাতে সীমান্ত জড়ো হয়েছেন। যত সময় এগোচ্ছে তত ভিড় বাড়ছে সেখানে। সবার মুখে একটাই আওয়াজ, অভিনন্দন জিন্দাবাদ। সেখানে উপস্থিত এক ভারতীয় বলেন, আমরা খুবই খুশি যে আমাদের নায়ক আমাদের মাঝে ফিরে আসছে।

বুধবার ভারতীয় বিমান বাহিনীর দুটি বিমান ভূপাতিত করার পাশাপাশি ভারতীয় পাইলটকে আটক করে তার ভিডিও প্রকাশ করে তারা। এর প্রতিক্রিয়ায় ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বৃহস্পতিবারের এক বিবৃতিতে ‘মানবিকতা সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক আইন আর জেনেভা কনভেনশন উপেক্ষা করে আহত সেনার কুরুচিপূর্ণ উপস্থাপন’র জোরালো নিন্দা জানানো হয়। আটক পাইলটকে দ্রুত মুক্তি দিয়ে ফিরিয়ে দেওয়ার আহ্বানও জানানো হয়। একইদিনে (বৃহস্পতিবার) পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘উত্তেজনা নিরসনে ভূমিকা রাখলে আমরা ভারতীয় পাইলটকে হস্তান্তর করতে প্রস্তুত’। কিছুক্ষণ পর পার্লামেন্টের এক যৌথ অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জানান, ‘শান্তির নিদর্শনের অংশ হিসেবে আমরা আটক ভারতীয় পাইলটকে আগামীকাল মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

অবশ্য ভারতের দাবি, জেনেভা কনভেনশন লঙ্ঘনের ভয়ে পাকিস্তান আটক বিমান সেনাকে ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে। অভিনন্দন ফেরার আগমুহূর্তে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ বিবৃতিতে বলেছেন, ‘পুলওয়ামা হামলার পরবর্তী বিমান আক্রমণের ঘটনায় পাকিস্তান সারা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এতো অল্প সময়ের মধ্যে পাইলট অভিনন্দনকে ফিরিয়ে আনার পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারাটা আমাদের কূটনৈতিক বিজয়’।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।