ভ্রমণ পরামর্শ

porjatan pic-1পাহাড়ে ভ্রমনে যাবেন ? ভ্রমণে বাড়তি সর্তকতা অবলম্বনের ফলে কিছু অপ্রত্যাশতি বিষয় এড়ানো যেতে পারে,আবার অনেক কিছু ভ্রমণের অংশ হিসাবে মেনে নেওয়াই ভালো। তবে আমার অভিজ্ঞতা থেকে যে বিষয়গুলো এখানে তুলে ধরছি সেগুলো একজন পর্যটকের ভ্রমণকে আরো অনেক সহজ করে তুলবে। ভ্রমণে সবার আগে প্রয়োজন মানসিক ভাবে স্থির থাকা। এতে যেকোনো পরিস্থিতিতে নিজেকে সামলে নেয়া যায়। তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে অবশ্যই স্থির মস্তিস্কেরও অধিকারী হতে হবে আপনাকে। ভ্রমণে যাওয়ার পর যেন কোনো কিছু খুঁজে বেড়াতে না হয়, সেজন্য একটা তালিকা তৈরি করে রাখা খুব প্রয়োজন। এ তালিকা যেমন, যে স্থানে যাবেন, সে স্থানটির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গা হতে হবে। ঠিক তেমনি সঙ্গে কি কি নিয়ে যাবেন, সেগুলোরও একটি নির্দিষ্ট তালিকা থাকা প্রয়োজন আপনার।

স্মরণীয় মুহূর্তগুলো ধরে রাখতে ভ্রমণে ক্যামেরা থাকবে এটাই স্বাভাবিক। ক্যামেরা নেয়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই অতিরিক্ত ব্যাটারি বহন করার বিষয়টি মাথায় রাখা খুব প্রয়োজন। কারণ অনেক সময় ব্যাটারি চার্জ দেয়ার ব্যবস্থা সব জায়গায় থাকে না।

ভ্রমণে সঙ্গে থাকা প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের বেলায় কী ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়? ভ্রমণে পাসপোর্ট, জাতীয় পরিচয়পত্র, টিকিট, ট্র্যাভেল ইন্স্যুরেন্সসহ আরো অনেক ধরনের কাজ একজন পর্যটকের সঙ্গে থাকে। সেসবের ফটোকপি অন্য কোনো ব্যাগে যত্ন সহকারে রাখা উচিত। কেননা আসল সব কাগজপত্র যদি হারিয়েও যায়, তবে এর ফটোকপিগুলো কাজে লাগে। অনেকেই এ বিষয়টি ভুলে যান। তাছাড়া প্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিক ডিভাইস, টুথব্রাশ, প্লাষ্টিক ব্যাগ, ওষুধসহ আরো অন্যান্য উপকরণ যেগুলো ভ্রমণে অবশ্যই প্রয়োজন, সেগুলো বেশি করে নিয়ে যাওয়াই ভালো। কারণ যেকোনো সময় একটি ব্যাগ হারিয়ে গেলেও অন্য ব্যাগে এ ধরনের উপকরণ থাকলে সেটি কাজে দেবে।

যে কোনো নতুন এলাকায় গিয়ে যাতায়াত ভাড়া জেনে নেয়াটা খুব জরুরি। পর্যটকদের এ বিষয়ে আগে থেকে জ্ঞান না থাকলে স্থানীয়দের অনেকে সে সুযোগ নিতে চায়। তাই আগে থেকেই বিভিন্ন জায়গার দূরত্ব অনুযায়ী ভাড়া কত হতে পারে, সেটি জেনে রাখা ভালো।

porjatan pic-2তবে স্থানীয়দের সঙ্গে কোনো প্রকার ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হলে সেটি যত দ্রুত সম্ভব সমাধানের চেষ্টা করুন। যেখানে ভ্রমনে যাবেন বিশেষ করে সে এলাকার নিরাপত্তা বাহিনী, অথবা পরিচিত জনের মোবাইল নাম্বার সাথে রাখুন, যেকোন মোবাইল নাম্বার দূর্ঘটনায় কাজে আসতে পারে।পর্যটন এলাকায় বসবাসরত মানুষদের সাংস্কৃতিকে সম্মান দেখানো, তাদের সঙ্গে সৌজন্য প্রকাশ করা যায় এমন কিছু ভাষা শিখে রাখাটা প্রয়োজন। তাছাড়া অর্থ ব্যয়ে সতর্ক থাকা, আবহাওয়ার বিষয়টি মাথায় রাখা, সানস্ক্রিন ব্যবহার করা, বিশুদ্ধ খাবার ও পর্যাপ্ত পানি খাওয়াসহ ইত্যাদি বিষয়ের দিকে বিশেষ নজর দেয়া।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।