ভয়ংকর রাঙামাটির প্রিমা চাকমা !

ফেসবুকে প্রেমের ফাঁদ পেতে ছিনতাই ও চাঁদাবাজি করতেন রাঙামাটির কোতোয়ালী থানার বনরূপা গ্রামের দেওয়ানপাড়ার মৃত পুনানন্দ চাকমার মেয়ে প্রিমা চাকমা।

চট্টগ্রামে ফেসবুকে পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রিমার সাথে দেখা করতে গিয়ে ছিনতাই ও চাঁদাবাজির শিকার হয়েছেন শিপিং কোম্পানির এক কর্মকর্তা। ঘটনার ১১ দিন পর এ ঘটনায় জড়িত তিনজনকে আজ রোববার (১৫মার্চ) চট্টগ্রাম নগরের আকবর শাহ থানার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন, রাঙ্গামাটির কোতোয়ালী থানার বনরূপা গ্রামের দেওয়ানপাড়ার প্রিমা চাকমা, আকবরশাহ থানার ফিরোজ শাহ কলোনীর কবরস্থান লেইন এলাকার মো. ইকরাম হোসেন রিপন ও নোয়াখালীর সেনবাগ থানার উন্দানিয়া গ্রামের মো. আজাদ ওরফে জেসি।

আকবরশাহ থানা সুত্রে জানা যায়, রিপন ফেসবুকে বিভিন্ন মেয়েদের নামে প্রথমে ফেসবুকে ফেইক আইডি খোলে। তারপর সে উচ্চবিত্তদের টার্গেট করে তাদের সঙ্গে ফেসবুকে বন্ধুত্ব করে। এভাবে আস্তে আস্তে প্রেম জমে উঠলে তাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে বসে। পরে ফেসবুক প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করার কথা বলে নিজেদের টার্গেট করা স্থানে নিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থলে কৌশলে লুকিয়ে থাকা চাকমা তরুণী প্রিমাকে দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে।

আকবরশাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান,গত ৪ মার্চ জাহিদ কামাল নামে এক চাকরিজীবী ফেসবুকে পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রিমা চাকমার সঙ্গে দেখা করতে যান। এ সময় রিপন ও জেসি এসে প্রিমার সঙ্গে কামালের জোর করে ছবি তোলে। ছবিগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনে পুলিশে ধরিয়ে দেবে বলে ভয়ভীতি দেখান তারা।

তিনি আরো জানান, ওই ব্যক্তিরা শিপিং কোম্পানির কর্মকর্তা কামালের সঙ্গে থাকা ল্যাপটপ, এটিএম কার্ড, মোবাইল ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেন। এক লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন। স্বজনদের ফোন করে বিকাশে ৪৯ হাজার টাকা দিলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। সেখান থেকে বের হয়ে থানায় এসে মামলা করেন তিনি।

ওসি জানান,পুলিশ অভিযান চালিয়ে এ ঘটনায় জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের কাছ থেকে ল্যাপটপ, এটিএম কার্ড ও মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে। প্রিমার পেশা সম্পর্কে জানতে চাইলে পুলিশকে সে কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।