মাটিরাঙ্গায় নিহতদের পরিবারের মামলা নিতে গড়িমসির অভিযোগ

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙা উপজেলার গাজীনগরে বিজিবি-গ্রামবাসী সংঘর্ষে একই পরিবারের তিনজনসহ চার জনের নিহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশ মামলা নেয়নি।

নিহত মো. মফিজ মিয়ার ছেলে মো. মানিক মিয়া জানান, তিনি বৃহস্পতিবার থানায় গিয়ে ৪০ বিজিবি’র হাবিলদার ইসহাক আলীর নাম উল্লেখ করে মামলা করতে চাইলে পুলিশের পক্ষ থেকে তাঁকে নিরুৎসাহিত করা হয়। অথচ গত বৃহস্পতিবার (৫মার্চ) সকালেই পুলিশের আইজি ড. জাবেদ পাটোয়ারী সাংবাদিকদের কাছে এ ঘটনায় গস্খামবাসীর মামলা নেয়া এবং সুষ্ঠু তদন্তের প্রত্যয় ব্যক্ত করেছিলেন।

কিন্তু মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শামসুদ্দিন ভুইয়া জানান, তাঁর কার্যালয়ে এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে কেউই আসেননি। তিনি দাবি করেন, ক্ষতিগ্রস্ত যে কেউ আইনের আশ্রয় নেয়ার অধিকার রাখেন। অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত করে ব্যস্থা নেয়া হবে।

মামলা না নেয়ার অভিযোগ করে নিহত মো.মফিজ মিয়ার ছেলে মো. মানিক মিয়া বলেন, আমি পিতাসহ স্বজনদের দাফন ও গুলিবিদ্ধ ভাইয়ের চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত থাকায় বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) সন্ধ্যার দিকে মাটিরাঙ্গা পৌরসভার কাউন্সিলর আলাউদ্দিন লিটনকে সাথে নিয়ে বিজিবির হাবিলদার মো. ইসহাক আলীকে প্রধান আসামী করে মামলা করতে গেলেও পুলিশ আমাদের মামলা না নিয়ে বের করে দেন।

মাটিরাঙ্গা পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. এমরান হোসেন বিজিবিরি বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মিথ্যা মামলার খড়গ মাথায় নিয়ে সাধারণ মানুষ ভীতির মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। মানুষ বনে জঙ্গলে রাত কাটাচ্ছে। এই ঘটনায় মানুষের মধ্যে আতংকের পাশাপাশি ক্ষোভ বিরাজ করছে।

মঙ্গলবার সংগঠিত ঘটনার সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করার দাবী জানিয়ে মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো শামছুল হক বলেন,সাধারন মানুষের মামলাটি গ্রহণ না করা একজন নাগরিকের আইনগত অধিকারের পরিপন্থী।

এদিকে বিজিবির পক্ষ থেকে দায়ের করা মামলা গ্রহণ করা হলেও ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসীর পক্ষে নিহত মো. মফিজ মিয়ার ছেলে মো. মানিক মিয়ার অভিযোগ গ্রহণ না করায় পুলিশের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ন্যায় বিচার পাওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। মাটিরাঙ্গাজুড়ে সাধারণ মানুষের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।