মাতামুহুরি রিজার্ভের পাথর উত্তোলনকারীদের হামলার শিকার সাংবাদিক

আসামীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে

বান্দরবানের আলীকদমে মাতামুহুরি রিজার্ভের শীল ঝিরিতে অবৈধ ভাবে পাথর উত্তোলনকারীদের হামলার শিকার ৪ জন গণমাধ্যমকর্মী। এসময় তাদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়া হয় মোবাইল, ক্যামেরা ও নগদ টাকা। হামলার শিকার সংবাদকর্মীরা হামলাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনতে ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে রিজার্ভের অবৈধ পাথর উত্তোলন বন্ধের জোর দাবি জানান।

গত (২৫ ডিসেম্বর ২০২১) বিকালে মাতামুহুরি রিজার্ভের শীল ঝিরিতে নজরুল ইসলাম গং কর্তৃক পাথর উত্তোলনের ছবি সংগ্রহ করতে গিয়ে দৈনিক যুগান্তরের আলীকদম উপজেলা প্রতিনিধি জয়দেব, দৈনিক আমার সংবাদ উপজেলা প্রতিনিধি রাসেল মজুমদার, দৈনিক বায়ান্ন আলীকদম উপজেলা প্রতিনিধি সুশান্ত কান্তি তঞ্চঙ্গ্যাঁ, পাহাড় বার্তার ডট কমের সাংবাদিক সুহৃদয় তঞ্চঙ্গ্যাঁ, নজরুল ইসলাম ও মোঃ শাহীনসহ ৪০/৫০ জন শ্রমিক মিলে সাংবাদিকদের কে মারধর ও হামলা করে পাশাপাশি সাংবাদিকতায় ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, ক্যামরা, নগদ টাকা ছিনিয়ে নেন নজরুল ইসলামগংরা।

দৈনিক আমার সংবাদের উপজেলা প্রতিনিধি রাসেল মজুমদার জানান, গত ২৫ ডিসেম্বর মাতামুহুরি রিজার্ভ অঞ্চলের গর্জন পাড়ার শীল ঝিরিতে অবৈধ ভাবে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে এমন সংবাদ পেয়ে আমরা তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে পাথর উত্তোলনকারী নজরুল ইসলাম ও তার সহযোগীদের নেতৃত্বে আমাদের উপর হামলা করে মোবাইল ফোন, ক্যামরা, নগদ টাকা ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দৈনিক বায়ান্ন আলীকদম উপজেলা প্রতিনিধি সুশান্ত কান্তি তঞ্চঙ্গ্যাঁ পাথর উত্তোলনের ছবি ও ভিডিও নেওয়ায় দুই দফায় মারধর করেছে ও পথ অবরোধ করে একই সাথে আমাদের সবার উপর হামলার চালায়।

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, উন্নয়ন হচ্ছে সমস্যা নেই কিন্তু স্থানীয় ঝিরি খালের পাথর ও বালি দিয়ে কেন? দপ্তর গুলো কি করছে? বনবিভাগ ঢাকঢোল বাজিয়ে রিজার্ভের অভিযানে যাচ্ছেন খুবই হাস্যকর বিষয়। বনবিভাগ, মাতামুহুরী রিজার্ভে ও শীল ঝিরির আশেপাশে থাকা বিভিন্ন প্রশাসনিক দপ্তরের নিরাপত্তা বলয় পেরিয়ে কিভাবে পাথর উত্তোলন করছে পাথর খেকোরা।

মাতামুহুরি রিজার্ভে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলায় শিকার দৈনিক বায়ান্ন উপজেলা প্রতিনিধি সুশান্ত জানান, আমি হামলায় শিকার হয়েছি, বর্তমানে চিকিৎসাধীন আছি। আমি হাতে, কোমরে আঘাত পেয়েছি, আমার মোবাইল, ক্যামরা দ্রুত উদ্ধার করার জন্য পুলিশ প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি।

তিনি আরো জানান, আমাদের তথ্য চিত্র সংগ্রহ কাজে বাধা দিয়ে হামলা করে নজরুল ইসলাম গং একটি ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, এক্ষেত্রে একটি প্রভাবশালী মহল টাকার বিনিময়ে সহায়তা করছেন পাথর খেকোদের। সেদিনের কথা মনে পড়লে এখনও শরীর শিউরে উঠে। আশায় ছেড়ে দিয়েছিলাম প্রাণের বেঁচে ফিরে আসব। একে একে হাতুরী, মাস্তুলসহ গাছের ডাল দিয়ে যেভাবে আমাকে ও আমার সহকর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছে তা বিভীষিকাময়।

পাহাড়বার্তার সংবাদকর্মী সুহৃদয় তংঞ্চঙ্গ্যা বলেন, সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর সহায়তা ছাড়া একটি পাথরও উত্তোলন সম্ভব না।তাহলে লক্ষ লক্ষ ঘনফুট পাথর রিজার্ভের শীল ঝিড়ি থেকে কিভাবে উঠছে,পাথর উত্তোলনের রাস্তা হচ্ছে, এগুলো একদিনে হয় করা হয়নি। তাহলে এতদিন সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো কি ঘুমিয়ে ছিল?

সাংবাদিকদের উপর হামলার বিষয়ে আলীকদম থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) মোঃ নাছির উদ্দিন সরকার জানান, মাতামুহুরি রিজার্ভ এলাকায় অবৈধ পাথর উত্তোলনের তথ্য সংগ্রহকালীন সংবাদকর্মীদের উপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়ছে। আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের প্রক্রিয়া চলছে ও মোবাইল ফোন, ক্যামরা উদ্ধারের কাজ চলছে।

এদিকে হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন ভুক্তভোগী সংবাদকর্মী ও স্থানীয় যুবসমাজসহ বিভিন্ন পত্রিকার প্রতিনিধিরা।

আরও পড়ুন
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।